West Bengal

দুর্গোৎসবের পর এবার দীপাবলিতেও অতিসক্রিয় ভূমিকা পালন প্রশাসনের

সাবধান হতে হবে আপনাকেও, অতিরিক্ত শব্দ এবং ধোঁয়া মৃত্যু ডেকে আনতে পারে কোভিড রোগীদের

পল্লবী কুন্ডু : বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বন, আর এই তেরো পার্বন-ই ক্রমশ কঠিন করে তুলছে পরিস্থিতি। প্রথমে দূর্গা পুজো আর এবার দীপাবলি। দুর্গোৎসবে সাধারণের ঢল আটকাতে নাস্তানাবুদ হয়েছে প্রশাসন।তবে প্রশাসনের নজরদারিতে এরূপ তৎপরতা সুরক্ষা এনে দিতে সক্ষম হয়েছে রাজ্যবাসীকে। আর এবার প্রশ্ন উঠছে আগত দীপাবলি নিয়ে। যেহেতু দীপাবলি তাই এক্ষেত্রে চিন্তাটা অন্য জায়গায়। অতিরিক্ত শব্দ এবং ধোঁয়া মৃত্যু ডেকে আনতে পারে কোভিড রোগীদের জন্য। আর তাই, রবিবার পশ্চিমবঙ্গ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ (West Bengal Pollution Control Board) জানিয়েছে যে এই দীপাবলির (Deepabali 2020) সময় ৯০ ডেসিবলের উপরে বাজি (Crackers) ফাটানো যাবে না।

জানা গেছে, এই সংক্রান্ত সমস্ত নিয়ম বলবত্‍ থাকবে। তারা আরও জানিয়েছে যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে রাজ্য এবং কেন্দ্রের সমস্ত পরামর্শগুলি কঠোরভাবে মেনে চলা হবে, শক্ত হাতেই পর্যবেক্ষণে রাখা হবে এই সমস্ত বিষয়। পশ্চিমবঙ্গ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের সদস্য সচিব রাজেশ কুমার বলেছেন, ৯০ ডেসিবলের উপরে শব্দবাজির চালান আটকাতে রাজ্য পুলিশের সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করছে তারা।তিনি জানিয়েছেন, অবিলম্বে অবৈধ আতশবাজি তৈরির ইউনিটগুলিতে অভিযান চালানো হবে। আতশবাজি থেকে তৈরি হওয়া ধোঁয়াশা যাতে ফুসফুসের রোগে আক্রান্ত রোগীদের ক্ষতি না করে, বিশেষত মহামারীর মধ্যেও যাতে ক্ষতি না হয় সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে তিনি আরো জানান, “আমরা সরকারের সুপারিশ মেনে চলব। এখনও পর্যন্ত, আমরা অনুমতিপ্রাপ্ত শব্দের থেকে বেশি শব্দবাজির বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করব। তবে হ্যাঁ, আমাদের স্বাস্থ্যের বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে।” রাজেশ কুমার আরও বলেছেন যে সরকারি বিধিগুলি সম্পর্কে অবহিত করতে আলোর উত্‍সব আয়োজনে জড়িত সমস্ত স্টকহোল্ডারদের সঙ্গে ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন যে, দুর্গাপুজোর সময় যেমন কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল সেই রকম নির্দেশ দীবাবলির সময় দিলে তারা তা মেনে চলবেন।

অন্যদিকে, রাজ্যের চিকিত্‍সকদের একটি সংগঠন সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে গিয়ে শব্দবাজি ব্যবহারে বিধিনিষেধ চেয়েছে। তাদের বক্তব্য, ধোঁয়া করোনা আক্রান্তদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।পশ্চিমবঙ্গ দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের এক সিনিয়র কর্তা বলেছেন, যদি বর্তমান আইনের আওতায় সম্ভব হয়, তবে কোভিড হাসপাতালের আশপাশে, সেফ হোম ও কোয়ারান্টিন সেন্টারগুলিতে শব্দবাজি ফাটানোয় নিষিদ্ধ আরোপ করার বিষয়টি বিবেচনা করতে পারে। ওই অফিসার জানান, দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড ও পুলিশ এই বিষয়ে নজরদারি চালাবে এবং পাশাপাশি অবশ্যই সাধারণের মধ্যেও সেই বোধ জাগিয়ে তোলা অত্যন্ত জরুরি যে আগত দীপাবলিতে সকলের কথা ভেবে তারা নিজেরা কি আচরণ করবেন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: