Uncategorized

পানীয় জলের সংকটে ভুগছে দুর্গাপুর, সোমবার তা অত্যন্ত জোরালো হয়ে ওঠে

লকগেট মেরামতির কাজ, মঙ্গলবারের আগে তা শুরু হবে না বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

পল্লবী কুন্ডু : গত শুক্রবার ৩১ নম্বর লকগেট ভেঙে যায় দুর্গাপুর ব্যারাজের(Durgapur Barrage)। সাথে সাথেই হু হু করে বেরোতে থাকে জল এবং তার ফলেই ধীরে ধীরে বাড়ে জল সংকট রবিবার থেকে পানীয় জলের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। যার ফলে পানীয় জলের সঙ্কট দেখা দিতে শুরু করে দুর্গাপুর জুড়ে। সোমবার তা অত্যন্ত জোরালো হয়ে ওঠে। আর এদিকে, দুদিন কেটে গেলেও সারানো হয়নি দুর্গাপুর ব্যারাজের ৩১ নম্বর লকগেট। মঙ্গলবারের আগে তা শুরু হবে না বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

পানীয় জলের সংকট দেখা দিয়েছে দুর্গাপুরের ৪১টি ওয়ার্ড-সহ পার্শ্ববর্তী জেলাগুলিতে। সেচ দফতরের আধিকারিক সঞ্জয় সিং জানান, সোমবার বাধে কাজ শেষ করে মঙ্গলবার লকগেট সারিয়ে ফেলা হবে। তারপরই দুর্গাপুরে পানীয় জলের সরবরাহ স্বাভাবিক হবে। এদিকে দুর্গাপুর ব্যারেজ জলশূন্য হওয়াতে পূর্ব বর্ধমানে পানীয় জলের সঙ্কট দেখা দিলেও, এখনও পর্যন্ত বাঁকুড়া জেলায় পানীয় জলের তেমন ঘাটতি হয়নি বলে জানিয়েছে বাঁকুড়া জেলা প্রশাসন। তবে সমস্যা তৈরি হলে তখন কি করণীয় সে কথা মাথায় রেখে সোমবার থেকে বাঁকুড়া শহর সহ জেলার তিনটি ব্লকে মোট ৩৬টি ট্যাঙ্কারে করে পানীয় জল সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি, এলাকায় পানীয় জল সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিলে, দ্রুত পানীয় জলের পাউচ পাঠানো হবে।

এর প্রভাব পড়েছে শিল্পেও। জলের অভাবে আপাতত স্তব্ধ শিল্পনগরী দুর্গাপুর। দুর্গাপুরের মেয়র দিলীপ অগস্তি জানিয়েছেন, দুর্গাপুর জুড়ে পানীয় জলের সমস্যার দ্রুত মোকাবিলা করেছে কর্পোরেশন। সব ওয়ার্ডে জলের ট্যাঙ্ক পাঠিয়ে পানীয় জলের সমস্যা দূর করার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি কাজ যাতে দ্রুত শেষ হয় সেইদিকেও নজর রাখা হচ্ছে। সকলের সুবিধার্থে যা করণীয় তাই করবে কর্তৃপক্ষ।আশা করা যাচ্ছে সোমবার সারাদিনে জল বেরিয়ে যাওয়া ও বালির বস্তা দেওয়ার কাজ শেষ করা সম্ভব হবে। অর্থাত্‍ মঙ্গলবার সকাল থেকে লকগেট মেরামতির কাজ শুরু করতে পারা যাবে বলেই আশা করছেন তাঁরা।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: