HealthLife Style

কঠিন রোগ নিরাময় জানেন কি কিশমিশের পুষ্টি গুনাগুন ?

কিশমিশ খাওয়া স্বাস্থ্যগত ভাবে খুবই উপকারী

সোনালী বা বাদামি রঙের ফলটি খুবই শক্তিদায়ক। বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে উৎপাদিত হয় কিশমিশ। এটি সরাসরি খাওয়া যায় এবং বিভিন্ন রান্নার স্বাদ বৃদ্ধিতে ব্যবহৃত হয়।শুকনো ফলগুলির মধ্যে কিসমিস হল অন্যতম প্রিয় আইটেম যা ছোট থেকে বড় সকলের বিশেষভাবে পছন্দের।কিন্তু স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি এই ফলের পুষ্টিগুণ অনেক বেশি। কিসমিসের মধ্যে থাকা ফাইবার, খনিজ লবণ, ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের ক্ষেত্রে খুবই উপকারী যা শরীরকে প্রয়োজনীয় শক্তি প্রদান করে।

কিশমিশের মধ্যে থাকা ভিটামিন সি, বি, ফলিক অ্যাসিড, আয়রন রয়েছে যা মানবদেহে অতি প্রয়োজনীয়। কিসমিসের মধ্যে থাকা ফাইবার খুব সহজেই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে। পলিফেনোলিক পাইটোনিউটিয়াট কিশমিশে থাকায় যা দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে ম্যাকিউলার রোগ প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে থাকে। তাই বাচ্চাদের প্রতিদিন কিশমিশ খেতে দেওয়া উচিত।

কিসমিসের মধ্যে থাকা পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণ করে। কিশমিশে ওলিনোলিক অ্যাসিড আছে যা দাঁতের ক্ষয় রোধ করে ক্যাভিটি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে এবং ক্যালসিয়াম দাঁত মজবুত করে থাকে। প্রতিদিন কিশমিশ খাওয়া স্বাস্থ্যগত ভাবে খুবই উপকারী।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: