Big Story

সরকারের উপর কোনো ভরসা নেই, ন্যায়ের আশায় অনবরত কেঁদে চলেছে নির্যাতিতার পরিবার

অপরাধের শাস্তি দিতে চায় নাকি অপরাধের উপর ধামা চাপাচ্ছে উত্তরপ্রদেশের সরকার, রাতের অন্ধকারে পুড়িয়ে দিল দেশের মেয়ে বাল্মীকিকে

দেবশ্রী কয়াল : শেষ পর্যন্ত হাথরসে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়েছে সংবাদ মাধ্যমকে। অনুমতি দেওয়া হয়েছে নির্যাতিতার পরিবারের সাথে কথা বলার জন্যে। আর তারপর থেকেই পরিবার তরফে উঠে আসছে একাধিক অভিযোগ প্রশাসনের বিরুদ্ধে। গতকাল থেকে সংবাদমাধ্যমের চাপের পরেই শেষেমেষ একপ্রকার বাধ্য হয়ে নির্যাতিতার পরিবারের সাথে সংবাদ মাধ্যমকে দেখা করার অনুমতি দিয়েছে যোগী সরকার। আর এই পরিস্থিতিতে আবারও একবার নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করতে হাথরসে আসবেন রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। আজ তাঁদের সাথে থাকবেন ৪০ থেকে ৫০ জন কংগ্রেস সাংসদ। এর আগে বৃহস্পতিবার ও রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী এসেছিলেন নির্যাতিতার পরিবেশের সাথে দেখা করতে। কিন্তু গ্রামে প্রবেশ করার পূর্বেই মাঝপথে তাঁদের বাঁধা দেওয়া হয়। পুলিশের ধাক্কাতে পড়ে গেছিলেন রাহুল। আর শেষ পর্যন্ত তাঁদের ঢুকতে দেওয়া হয় না গ্রামে। এবং উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাঁদের আটক করে ও এসকর্ট করে দিল্লি পাঠিয়ে দেয়।

গত ১৪ই সেপ্টেম্বর হাথরসে ১৯ বছরের যুবতীকে নৃশংস ভাবে ধর্ষণের ঘটনায় ইতিমধ্যেই গোটা দেশ প্রতিবাদ মুখর। প্রশাসনের কাছে জবাব চাইলে তারা নিশ্চুপ হয়ে রয়েছে, বলছে আমরা ডিউটি করছি কিছু জানি না। জবাব দিতে সম্পূর্ণভাবে তারা ব্যর্থ। উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের পদত্যাগ দাবি করেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধি বঢরা। পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন বহু মানুষ। অনেক জায়গায় পোড়ানো হয়েছে আদিত্যনাথ এর ছবি। রাষ্ট্রপতি শাসন জারির কোথাও উঠে এসেছে। এখন সকল দেশবাসীর একটাই দাবি, উপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে অপরাধীদের। বাল্মীকির অপরাধীরা যেন কোনোভাবেই ছাড়া না পায়।

অপরদিকে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, মহিলাদের সুরক্ষার বিষয়ে উত্তরপ্রদেশ সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। অভিযুক্তদের কড়া শাস্তি হবে। ইতিমধ্যেই এসপি, ডিএসপি সহ ৫ পুলিশকর্তাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। কিন্তু তাঁর এই কোথায় বিশ্বাস নেই আর কারোর। না বিশ্বাস রয়েছে নির্যাতিতার পরিবারের, না বিশ্বাস হয়েছে সাধারণ মানুষের। এছাড়াও হাথরসের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর সাসপেন্ড করার ও দাবি জানানো হয়েছে। কিন্তু তা এখনও পর্যন্ত হয়ে ওঠেনি। বাকি পুলিশ আধিকারিকদের মধ্যে চর্চা শুরু হয়ে গেছে যে এবারে কার পালা।

যোগী আদিত্যনাথের পদত্যাগ দাবি করছেন ভীম আর্মির প্রধান চন্দ্রশেখর আজাদও। তাঁর কথায়, ‘যতক্ষণ না যোগী আদিত্যনাথ পদত্যাগ করছেন এবং সুপ্রিম কোর্টে মামলার বিচার হচ্ছে, ততক্ষণ নির্যাতিতা তরুণী ন্যায় বিচার পাবেন না। এই ধর্ষকদের দ্রুত কঠিন সাজা হওয়া উচিত, যাতে অন্যান্যরা এই ধরনের অপরাধ করার আগে দু বার ভাবে।’ অর্থাৎ হওয়া উচিত একটা দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি। যাতে দ্বিতীয়বার কেউ এমন নৃশংস, জঘন্য অপরাধ করার আগে শাস্তির কথা ভেবেই শিউরে ওঠে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: