West Bengal

লোকাল পরিষেবা বন্ধ করার আর্জি, বাড়তে পারে সংক্রমণ

লোকাল পরিষেবা বন্ধ না হলে আসন্ন কালীপুজো বা কার্তিক পুজো তে হতে পারে ভীড় এবং বাড়তে পারে সংক্রমণ, আর্জি আদালতে

পৃথা কাঞ্জিলাল : এবার লোকাল ট্রেন নিয়ে হাইকোর্টে(High Court) মামলা দায়ে । এই মামলা দায়ের কারণ কালীপুজো,জগদ্ধাত্রী পুজো, কার্তিক পুজো ও রাস পূর্ণিমা। এইসব পুজো যে জেলাগুলিতে বিখ্যাত সেইসব এলাকায় পুজোর দিন গুলিতে লোকাল ট্রেন (Local Train) চললে মানুষজনের যাওয়ার প্রবণতা বাড়বে তখন ভীড় জমতে বাধ্য হবে এর ফলে র সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা থাকছে। জগদ্ধাত্রী পুজো কার্তিক পুজো রা জেলার বিখ্যাত সেইসব এলাকাগুলিতে এবং তার আশেপাশে ১০ কিলোমিটারের মধ্যে কোন লোকাল ট্রেন যাতে না নামানো হয় সেই আর্জি জানিয়ে এবার হাইকোর্টে মামলা দায়ের করা হল। মূলত বারাসত নৈহাটি ব্যারাকপুর কাঁচরাপাড়ার মত জায়গায় যেখানে কালীপুজো বিখ্যাত।

অন্যদিকে জগদ্ধাত্রী পুজোয় কৃষ্ণনগর চন্দননগরে প্রচুর মানুষের সমাগম হয়। রাস পূর্ণিমা নদীয়ার বিভিন্ন জেলায় মানুষজনের ও আকাটোয়ার কার্তিক পুজো দেখতে দূরদূরান্ত মানুষজন ভিড় জমায়। তবে মামলা প্রসঙ্গে রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে এ আর্জি যদি আদালত মেনে নেয় তাহলে সে ক্ষেত্রে ওই কয়েকদিন বিশেষ শাখার ট্রেন চলাচল হয় নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে নাহলে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিতে হবে। ট্রেন যচলছে অথচ স্টপেজ দেওয়া যাবে না সেটা সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। কালীপুজোর আগে দশই নভেম্বর ছুটির পর থেকে হাইকোর্টের বিশেষ বেঞ্চ বসবে। ওইদিনই মামলার শুনানি হবে।

দুর্গাপুজো ও কালিপুজো নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে যিনি মামলা দায়ের করেছিলেন সেই অজয় কুমার দে র হাত ধরেই এবার লোকাল ট্রেনের এই নতুন মামলাটি দায়ে করা হয়েছে । কাটোয়া, শান্তিপুর, কৃষ্ণনগর, বারাসাত, ব্যান্ডেল, শেওড়াফুলি, শ্রীরামপুর থেকে ট্রেন ছাড়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আদালত যদি মামলাকারীর আর্জি মেনে নেয় তাহলে ওই স্টেশনগুলি থেকে লোকাল ট্রেন চালানো যাবে না বা ছাড়ার ব্যবস্থা করা যাবে না। তাই রেল নিজে থেকে এই মামলায় অংশগ্রহণ করে সমস্যার বিষয়গুলি আদালতের কাছে তুলে ধরতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। আর আদালত যদি নিজে থেকে রেলের অভিমত চায় তাহলে রেল তার অভিমত জানিয়ে দেবে। সব থেকে বড় বিষয় এই স্টপেজ বন্ধ করে দেওয়ার আর্জির আওতায় ব্যারাকপুর, নৈহাটি, কাঁচড়াপাড়া যেমন কালিপুজোর জন্য পড়ে যাবে তেমনি বাউড়িয়া, অশোকনগরের মতো স্টেশনও পড়ে যাবে জগদ্ধাত্রী পুজোর জন্য। সামগ্রিক ভাবে তাতে ধাক্কা খাবে লোকাল ট্রেন পরিষেবা।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: