Big Story

গণধর্ষণ, পিটুনি, প্রাণনাশের হুমকি। সমকামীদের এই গুলোই প্রাপ্য আফগানিস্তানের

তালিবানি শাসনে সমকাম-বিদ্বেষীদের কড়া নজরদারি

তিয়াসা মিত্র : একটি বছর হতে চললো আফগানিস্তানের রাজত্বে তালিবানেরা রয়েছে, এরই মধ্যে দুর্বিসহ হয়ে পড়েছে সেখানকার মানুষদের জীবনযাত্রা। প্রতিবারই আমাদের সামনে উঠে এসেছে সেই দেশের মহিলাদের হালহকিকৎ-এর কাহিনী। এবার দেখান যাচ্ছে সেই দেশের সমকামীদের অবস্থা সব থেকে বেশি খারাপ পর্যায়ে পৌঁছেছে। এমন যে সেখানে তালিবানি শাসনের আগে সমকামীদের অবস্থা খুবই সুখকর ছিল, না। সেটা একদমই নয়। আফগানিস্তানে সমকামিতা নিষিদ্ধ এবং তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে নিদান দিয়েছিলেন তালিবানের হাতে ক্ষমতাচ্যুত সে দেশের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট গনি। আফগানিস্তানের সমকামী, উভকামী, রূপান্তরকামী বা ভিন্ন লিঙ্গ পরিচয়ধারীদের জীবনে গণধর্ষণ, মারধর বা প্রাণনাশের হুমকিই নিত্য বাস্তব। নিউ ইয়র্কের হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) নামে একটি মানবাধিকার সংগঠনের সাম্প্রতিক সমীক্ষায় এমনই দাবি করা হয়েছে।

আউটরাইট অ্যাকশন ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি মানবাধিকার সংগঠনের শীর্ষ গবেষক তথা রিপোর্টের এক সমীক্ষক জে লেস্টার ফেডার বলেন, ‘‘গনি সরকারের আমলে সে দেশের এলজিবিটি সম্প্রদায়ের অনেকেই গণধর্ষণ বা পরিবারিক হেনস্থার শিকার। রাষ্ট্র তাঁদের রক্ষক হয়নি।’’ তা সত্ত্বেও নিজস্ব পরিসর খুঁজে পেয়েছিলেন এলজিবিটি সম্প্রদায়ের মানুষেরা। এইচআরডব্লিউ-র মহিলা শাখার অ্যাসোসিয়েট ডিরেক্টর হেদার বার বলেন, ‘‘আফগানিস্তানে এলজিবিটি সম্প্রদায়ের মানুষদের জীবন বরাবরই কঠিন ছিল। তবে তাঁরা নিজেদের মতো করে বেঁচে থাকতে পারতেন। একে অপরের সমর্থন জুটিয়ে একটা নিজস্ব সম্প্রদায় গড়ে উঠেছিল। তাঁদের আশা ছিল, ধীরে ধীরে হলেও পরিস্থিতির উন্নতি হবে। তবে গত বছরের ১৫ অগস্ট সে সব শেষ হয়ে গিয়েছে!’’

তালিবানি শাসনে সমকাম-বিদ্বেষীদের কড়া নজরদারি বা এই সম্প্রদায়ের প্রতি ভীতি আরও বেড়েছে বলেই মত জেবার। আফগানিস্তানে তাঁদের এ দশা কেন? জেবার সাফ জবাব, ‘‘গত বছর ১৪ অগস্ট পর্যন্তও যাঁরা আমার মতো মানুষজনের ক্ষতির চিন্তা করতেন, তাঁরা শাস্তির ভয়ে পিছিয়ে আসতেন। তবে ১৫ অগস্ট থেকে তাঁদের তো রমরমা। এখন তো আমাদের ক্ষতি করলেও শাস্তি দেওয়ার কেউ নেই!’’

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: