Big StoryWorld

ফিরে আসে ইতিহাস যুগে যুগে “চীন -ভারতের যুদ্ধ “

প্রতিরক্ষার স্বার্থে পাল্টা সৈন্য মজুত রাখতে চাইছে ভারত

তিয়াসা মিত্র : ভারতের বিরোধিতাতে সীমান্তে চলছে লাল সেনাদের যুদ্ধ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটরের চাঞ্চল্যকর দাবি নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে জোরদার। এই কমিউনিস্ট দেশ শুধু ভারতের জন্য নয়, অন্য প্রতিবেশী দেশের জন্যও বিপজ্জনক। রিপাবলিকার মার্কিন সেনেটর জন কারনাইন বলেন, প্রতিবেশী দেশের জন্য বিপদ হয়ে দেখা দিয়েছে চিন। এই প্রসঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্ৰীর সাথে দেখা করেন জন কারনাইন। এছাড়া একাধিক বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয় কারনাইনের। সেখানে লাদাখে চিনা আগ্রাসনের বিষয়টি বিশেষভাবে উঠে আসে।

তিনি বলে শুধু ভারতের জন্য না প্রতিবেশী প্রত্যেকটি দেশের জন্য ভয়াবহ হয়ে উঠছে চীন তাই আগে ভাগে যতটা সম্ভব প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। তবে সবার আগে চীনের ফনার সামনে আছে ভারত তারপর অন্য দেশ গুলি। তাই আন্তর্জাতিক জলপথ থেকে শুরু করে আকাশপথ এবং স্থলপথে চলছে টহলদারি। কারোর অগোচরে নেই চীন এবং ভারতের পুরোনো শত্রুতা এবং যুদ্ধের কথা। সেই ইতিহাস আবার ফিরে আসছে কি না তাই নিয়েই কথা বলছেন জন কারনাইন। চিন শুধু ভারতকে হুমকি দিয়েই ক্ষান্ত নেই, তারা তাইওয়ানকে সম্প্রতি হুমকি দিয়েছে।

২০২০ সালের গালওয়ান উপত্যকায় ভারতের সীমানায় চিনের লালফৌজ ঢুকে পড়তেই সংঘর্ষ শুরু হয়েছিল। সেখানে রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হন। ভারতও পাল্টা দিয়েছিল। ১৯৭৫ সালরে পর সেবারই প্রথম প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। কার্যত যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হয়। চিন যেমন তৈরি হচ্ছে, ভারতও তৈরি তার মোকাবিলায়। ভারতের বিদেশমন্ত্রকও বলেছিল সীমান্তে চিনের গতিবিধিও উসকানিমূলক। তাই প্রতিরক্ষার স্বার্থে পাল্টা সৈন্য মজুত রাখতে চাইছে ভারত। তবে সাহায্যের হাত এগিয়ে দিতে মার্কিন যুক্ত রাষ্ট্র প্রস্তুত কিনা সেই নিয়ে ধোঁয়াশা বর্তমান।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: