Sports Opinion

পয়েন্ট টেবিলে ৮ থেকে সোজা লাফ ৪ এ, প্লে অফের রেসে নিজেদেরকে ধরে রাখল কেকেআর

সহজ নয় প্লে অফ খেলা, কিছু অঙ্ক মিললেই কেকেআর পাবে সুযোগ প্লে অফের

দেবশ্রী কয়াল : আইপিএল(IPL) নিয়ে মানুষের উত্তেজনা তুঙ্গে। আর রবিবারের ম্যাচ মানেই এক কোথায় জমজমাটি। প্লে অফের রেসে নিজেদেরকে বাঁচিয়ে রাখতে কালকের মরন-বাঁচন ম্যাচে জয়লাভ করেছে কলকাতা শিবির। লীগের ৮ নম্বর থেকে সোজা ৪ নম্বরে এসে পৌঁছেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স (Kolkata Knight Riders)। নিজেদেরকে প্লে অফের দৌড়ে বাঁচিয়ে রাখতে হলে কালকের ম্যাচকে জিততেই হতো কলকাতা দলকে। কাল মুখোমুখি হয়েছিল রাজস্থান রয়্যালস(Rajasthan Royals) বনাম কলকাতা নাইট রাইডার্স। আর কালকের এই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে রাজস্থানকে ৬০ রানে হারায় কলকাতা। আর তার সাথে সাথেই প্লে অফে নিজেদের খেলার সম্ভাবনাকেও বাঁচিয়ে রাখে।

কালকের ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন রাজস্থান রয়েলসের অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ(Steve Smith)। এরফলে প্রথমে ব্যাটিং করতে আসে কেকেআর। একদম শুরুতেই দল খায় চোট, ক্যাচ হন নীতিশ রানা। এরপর খেলার হাল ধরেন ওপেনার শুভমান গিল এবং রাহুল ত্রিপাঠি। মাঠে ৪ আর ৬ এর খেলা দেখা যায়। কিন্তু তারপরেই পরপর উইকেট পড়তে থাকায় চাপে পড়ে যায় কেকেআর। সেই সময় দলের হাল ধরেন কেকেআর অধিনায়ক ইয়ন মর্গ্যান(Eoin Morgan)। মাত্র 35 বলে 68 রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন মর্গ্যান। এদিন তিনি মারেন ৫ টা ছয় এবং ৫টা চার। মর্গ্যানের মারকাটারী ইনিংসের সুবাদে নির্ধারিত কুড়ি ওভার শেষে 7 উইকেট হারিয়ে 191 রান তোলে কেকেআর। রাজস্থানকে দেয় ১৯২ রানের টার্গেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লে-তেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে চাপের মুখে পড়ে যায় রাজস্থান রয়েলস। প্যাট কমিন্সের দুর্দান্ত বোলিংয়ের সামনে এইদিন কার্যত দাঁড়াতেই পারলেন না রাজস্থানের কোন ব্যাটসম্যান। কমিন্সের চার উইকেটের দৌলতে মাত্র 131 রানে ৯ উইকেটে শেষ হয়ে যায় রাজস্থানের ইনিংস। 60 রানে ম্যাচ জিতে প্লে অফের লড়াই জমিয়ে দিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। এদিন ম্যাচের সেরা হয়েছেন প্যাট কমিন্স। এছাড়া সেরা ক্যাচ ধরাতে দীনেশ কার্তিকের নাম উঠে এসেছে। একদম বাজে পাখির মতো উড়ে উড়ে কাচ ধরেছেন তিনি, যাতে মুগধ ক্রিকেট প্রেমীরা।

তবে নাইটদের প্লে অফ খেলা কিন্তু এই জয়ের পরেও নিশ্চিত নয়। চার সমীকরণ মিললে তবেই শেষ চারের দরজা খুলবে কেকেআরের সামনে। মিলতে হবে চারটি অঙ্ক, তবেই হবে উপায়। আর তার জন্যে, প্রথমত, দিল্লি ক্যাপিটালসের(Delhi Capitals) বিপক্ষে হারতেই হবে আরসিবিকে(Royal Challengers Bangalore)। অন্য ম্যাচে সানরাইজার্সকে(Sunrisers Hyderabad) হারতে হবে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের(Mumbai indians) কাছে। এমন ফলাফল হলে মুম্বইয়ের পয়েন্ট হবে ২০। দিল্লির ১৬। ১৪ পয়েন্টে থাকবে কেকেআর এবং আরসিবি। আর তাহলেই দুই দল পা রাখবে প্লে অফে।

তবে ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে যদি আরসিবি হেরে যায় এবং মুম্বই যদি পরাজিত হয় হায়দরাবাদের কাছে, সেক্ষেত্রে কিন্তু দেখা দেবে সমস্যা। তবে সেখানেও সুযোগ থাকছে কলকাতার জন্যে। তখন মুম্বইয়ের পয়েন্ট হবে ১৮। দিল্লির ১৬। ১৪ পয়েন্টে ‘ত্রিশঙ্কু’ অবস্থা হবে কেকেআর, আরসিবি এবং হায়দরাবাদের। নেট রান রেট আগে থেকেই ভালো থাকায় উঠে যাবে সানরাইজার্স। তখন আরসিবি এবং কেকেআরের নেট রানরেটের হিসাব বিবেচ্য হবে।

অপরদিকে দিল্লি ক্যাপিটালস ব্যাঙ্গালোরকে হারিয়ে দিলে এবং মুম্বই হায়দরাবাদের বিপক্ষে জিতে গেলে সেক্ষেত্রে মুম্বইয়ের পয়েন্ট হবে ২০। ব্যাঙ্গালোরের সংগ্রহে থাকবে ১৬ পয়েন্ট। কেকেআর এবং দিল্লি দুই দলের কাছেই তখন ১৪ পয়েন্ট। দুজনেই লিগ পর্বের গন্ডি টপকে পা রাখবে প্লে অফে। এছাড়া যদি দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে আরসিবি জয়লাভ করে এবং মুম্বইকে হায়দরাবাদ হারিয়ে দেয় তখন মুম্বইয়ের পয়েন্ট হবে ১৮। আরসিবির সংগ্রহে ১৬ পয়েন্ট। ১৪ পয়েন্টে থাকবে হায়দরাবাদ, দিল্লি এবং কলকাতা। নেট রান রেট ভালো থাকায় তৃতীয় দল হিসেবে কোয়ালিফাই করবে হায়দরাবাদ। চতুর্থ দল হিসেবে তখনও লড়াই হবে কলকাতা এবং দিল্লির। অর্থাৎ অনেক গুলি খেলার উপর নির্ভর করবে এখন কলকাতার প্লে অফে ওঠার ভাগ্য।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: