Youth

বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার যুবকের ঝুলন্ত মৃত দেহ, রয়েছে ৩টি সুইসাইড নোট

ধোঁয়াশা তৈরী হয়েছে মৃত্যুর কারন নিয়ে, চলছে পুলিশি তদন্ত

দেবশ্রী কয়াল : আবারও এক আত্মহত্যার ঘটনা, জমাট বেঁধেছে রহস্য। গতকাল গভীর রাতে, গোসাবার বিধায়কের বাড়িতে মেলে এক যুবকের ঝুলন্ত দেহ। বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের দক্ষিণ ২৪ পরগনার চুনাখালির বাড়ি থেকে মেলে লাবণ্য হালদার নামে ওই যুবকের মৃত দেহ। খবর পাওয়া মাত্রই দেহ উদ্ধার করে তা ময়না তদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। কিন্তু কী কারণে আত্মঘাতী হলেন ওই যুবক? অজানা সেই কারন। আত্মহত্যার কারন জানতেই গোটা বিষযটি খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

জানা যাচ্ছে, লাবণ্য নামে ওই যুবকের বাড়ি গোসাবার পাঠানখালী এলাকায়। বাম আমলে লাবণ্যের বাবা এবং মাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠেছিল স্থানীয় সিপিএম নেতা হাকিম মোল্লার বিরুদ্ধে। মাত্র ১৫ বছর বয়স তখন লাবণ্যের আর সেই থেকেই জয়ন্ত নস্করের বাড়িতেই থাকতে শুরু করে লাবণ্য। লেখাপড়ার জন্য তাকে রাখা হয়েছিল সোনারপুরে। কিন্তু লকডাউনে সোনারপুর থেকে লাবণ্য ফিরে যায় চুনাখালিতে বিধায়কের বাড়িতে। তবে বিপদ সাঁধে রাতের বেলা। গতকাল রাতে বাড়ির পরিচারিকা তার ঘরে খাবার দিতে গিয়ে দেখে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলছেন লাবণ্য। খবর পেয়ে ছুটে যান বিধায়ক। নিরাপত্তারক্ষীরা গিয়ে তড়িঘড়ি তাঁকে নামিয়ে নিয়ে যায় হাসপাতালে। কিন্তু শেষ রক্ষা টুকু হয়না। সেখানে চিকিত্‍সকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

এ পর বিধায়ক বলেন, ‘অনেক ছোট থেকেই ও আমার বাড়িতে থাকত। আমি ওকে বড় করছিলাম। কিন্তু হঠাত্‍ করে কেন এইরকম ঘটনা ঘটালো তা বুঝতে পারছি না।’ পুলিশ তদন্ত করছে।

সূত্রের খবর, মৃত যুবকের ঘর থেকে মিলেছে তিনটি সুইসাইড নোট। নিহতের হাতের লেখার সঙ্গে ওই সুইসাইড নোটের হাতের লেখা মিলিয়ে দেখছে পুলিশ। তবে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান এই ঘটনার পিছনে প্রণয়ঘটিত বিবাদ রয়েছে। নিহতের বোনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পেরেছে, একটি মেয়ের সঙ্গে মৃতের সম্পর্ক ছিল। যা নিয়ে সম্প্রতি সমস্যা তৈরি হয়েছিল। তবে কী সেই কারণেই এই চরম সিদ্ধান্ত? নাকি এর পেছনে রয়েছে আরও গভীর কোনো রহস্য, তাই খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: