West Bengal

লোকাল ট্রেন চালু হলেও, ফুড প্লাজা খোলা নিয়ে দেখা দিচ্ছে অনিশ্চয়তা

যাত্রী সংখ্যা কম, আয়ের পরিমান নিয়ে চিন্তিত ব্যবসায়ীরা

দেবশ্রী কয়াল : এতদিন ধরে মানুষের মধ্যে একটা বড় প্রশ্ন ছিল, যে লোকাল ট্রেন(Local Train) কবে থেকে চালু হবে। রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতো আগামী সপ্তাহ থেকেই রাজ্যে শুরু হয়ে যাবে লোকাল ট্রেন পরিষেবা। গতকাল বৃহস্পতিবার নবান্নে (Nabanna) রেল এবং রাজ্য প্রশাসনের বৈঠকের পর আগামী বুধবার ১১ই নভেম্বর থেকেই রাজ্যে চালু হয়ে যাচ্ছে লোকাল ট্রেন পরিষেবা বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। একদিকে লোকাল ট্রেন চালু হওয়ার খবর শুনে যেমন খুশি হয়েছেন যাত্রীরা। তেমনি অপরদিকে খুশি হচ্ছেন স্টেশনের ফুড প্লাজা (Food Plaza) থেকে শুরু করে ভেন্ডররা। বুধবার থেকে লোকাল ট্রেন চালু হলেও, কবে থেকে ফুড প্লাজা পুরোপুরি খুলে দেওয়া হবে সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত নন তারা।

একমাত্র যদি বেশি যাত্রী হয় তাহলেই ফুড প্লাজা চালানো লাভজনক হবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। লোকাল ট্রেন চললে সুবিধা পাওয়া যাবে বলে আশাবাদী রেল স্টেশনে যারা ব্যবসা করেন তারা সকলেই। তবে তাদের মূল অসুবিধা ফুড প্লাজা খুলে রাখলে তার জন্যে যে পরিমাণ চার্জ নেওয়া হচ্ছে সেই বিষয়টি। হাওড়া স্টেশনের ফুড প্লাজা যিনি চালান সেই শঙ্কর নাগ জানান, এই মুহূর্তে যাত্রী কম। লোকাল ট্রেন চালু হলে কিছুটা যাত্রী বাড়বে বলে নিশ্চিত হলেও আইআরসিটিসি তাদের থেকে প্রতিদিন ৩০ হাজার টাকা করে চাইছে। আর এই মুহূর্তে তাদের পক্ষে তা দেওয়া সম্ভব নয়। ফলে লোকাল ট্রেন চললেও ফুড প্লাজা খোলা হবে কিনা তা নিয়ে একটা প্রশ্ন রয়েই যাচ্ছে। যদিও রেলের সরাসরি ভেন্ডার যারা তাদের থেকে রেল মাত্র ৬% টাকা নিচ্ছে। আইআরসিটিসি সেখানে তাদের থেকে ২০% নিচ্ছে বলে উঠছে অভিযোগ।

সম্প্রতি পুজোর কটা দিন স্টেশনের ফুড প্লাজা, জন আহার, রিটায়ারিং রুম, রেল যাত্রী নিবাস খোলার অনুমতি দিয়েছিল ভারতীয় রেল বোর্ড। ইতিমধ্যেই সমস্ত জোনের প্রিন্সিপাল চিফ কমারশিয়াল ম্যানেজারদের চিঠি দিয়ে সে কথা জানিয়েও দেয় ভারতীয় রেল। এর ফলে কিছুটা হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে পারবে ফুড প্লাজার মালিকরা এমনটাই মনে করা হয়েছিল, কিন্তু এখনও আবারও ফুড প্লাজা খোলা হবে কী না সেই নিয়ে আবারও প্রশ্ন থেকেই গেল।

তবে জানা যাচ্ছে এবারে ফুড প্লাজা খুলে গেলে, নয়া নিয়মে কোভিড প্রটোকল মেনেই যাত্রীরা ফুড প্লাজায় বসে খাবার খেতে পারবেন। তবে শারীরিক দূরত্ব মেনে তাদের বসতে হবে। ২৫ শতাংশের বেশি কাউকে বসে খেতে দেওয়া যাবে না। স্যানিটাইজ হবে নিয়মিত। মাস্ক, গ্লাভস হতে হবে বাধ্যতামূলক। এখন দেখার বিষয় এটাই স্টেশনে ফুড প্লাজা কবে খোলে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: