West Bengal

প্রথম দিনে এ নজরকাড়া ভিড় ট্রেন এ, রেলের sop মেনেই ট্রেন চললো ভোর থেকেই

ট্রেন চালু হওয়া তে সুবিধা হয়েছে অনেকেরই, তবে বেলা বাড়তেই বাড়ছে ভিড় সাথে মানছেন না কেউ বিধি-নিষেধ

পৃথা কাঞ্জিলাল : দীর্ঘ সাড়ে সাত মাসের অপেক্ষার পর অবশেষে বুধবার ভোর রাত থেকে রাজ্যে আবার চাকা গড়ানো শুরু হল। লকডাউন (Lockdown) ও আনলক (Unlock) পর্বের মধ্যে কিছু লোকাল (স্টাফ স্পেশ্যাল) ট্রেন অবশ্য আগে থেকেই চললেও তা শুধু রেলকর্মীদের জন্য ছিল,কিন্তু উঠে পড়ছিলেন অনেক সাধারণ ও, তা নিয়ে ঝামেলাও কিছু কম হচ্ছিল না। হাওড়ার ডিআরএম জানান, “যতটা ভেবেছিলাম, ততটা ভিড় হয়নি। অন্য সময়ের তুলনায় এই ভিড় কিছুই নয়। থার্মাল স্ক্রিনিং চলছে। করোনা বিধি মেনে চলার চেষ্টা করার জন্য যাত্রীদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।“ ট্রেনে বেশি ভিড় হলে সেই ট্রেনে না ওঠার পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি।

খড়গপুর স্টেশনে ‘নো মাস্ক নো টিকিট’ পন্থায় হচ্ছে মাইকিং। সামাজিক দুরত্বও মানা হচ্ছে না। বেলা বাড়তেই দেখা মিলছে সেই চেনা ছবি। পাশাপাশি চলছে মাইকিং। তবে সবক্ষেত্রে নজরদারি সম্ভব হচ্ছে না। লোকাল ট্রেন (Local Train) পরিষেবা শুরু হওয়ার পর কেটে গেছে অনেকক্ষণ। ইতিমধ্যেই ভিড় বাড়তে শুরু করেছে বিভিন্ন স্টেশনে, ট্রেনে। বেলা বাড়তে বাড়ছে ভিড়। অন্যান্য দিনের অফিস টাইমের থেকে খুব পার্থক্য লক্ষ করা হচ্ছে না। মাস্ক পরে থাকলেও যাত্রীদের পক্ষে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না। আবার কারও কারও অভিযোগ, স্টেশনে ঠিকভাবে চেকিং হচ্ছে না। ভিড় বাড়তে শুরু করেছে ক্যানিং লোকালেও।

আশঙ্কা ফিরছে আবারো যদিও। সকালের দিকে যাও বা মাস্ক, সামাজিক দূরত্ব, মানার ছবি চোখে পড়েছে তা আবার উধাও হয়ে গিয়েছে বেলা গড়াতেই। কার্যত যত বেলা বেড়েছে হাওড়া ও শিয়ালদা স্টেশনে ততই আগেকার ছবিই ফিরেছে, মানুষের ঢল নামছে এবং কমছে বিধি মানার সংখ্যা ও। মেমারি স্টেশনে করোনা বিধি মেনেই যাত্রীরা ট্রেনে উঠছেন। প্ল্যাটফর্মে ঢোকার আগে হচ্ছে থার্মাল স্ক্রিনিং। শরীরে তাপমাত্রা যদি বেশি হয়, তাহলে সেই যাত্রীকে আলাদা করা হচ্ছে। স্টেশন চত্বরে রাখা হয়েছে অ্যাম্বুল্যান্সও। অন্যদিকে হলদিয়া স্টেশনেও মেনে চলা হচ্ছে কোভিড প্রোটকল। প্রবেশ এবং বাহির পথ আলাদা করে দেওয়া হয়েছে। রেলের ব্যবস্থাপনাতে খুশি যাত্রীরা। প্রথম দিনের চিত্র কিছুটা এরকম হলেও আশা রাখা যায় যাত্রী তা মানবেন বিধি আগামী দিনেও, এমনকি ট্রেন যাত্রী দের অটো তে ওঠার আগেও হচ্ছে থার্মাল স্ক্রিনিং।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: