West Bengal

লকডাউন প্রত্যাহারের হটাৎ সিদ্ধান্তে অসুবিধার মুখে পরে বিমান সংস্থা গুলি

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজ্য জানিয়ে দেয়, শনিবারের লকডাউন প্রত্যাহার করা হচ্ছে। এরপর উড়ান সংস্থাগুলি তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে রাজি হয়নি।

পল্লবী কুন্ডু : পরীক্ষার কথা মাথায় রেখেই শুক্রবারের পর শনিবারের লকডাউন প্রত্যাহার করে রাজ্য সরকার। কিন্তু সিদ্ধান্তের হটাৎ এরূপ পরিবর্তনের কারণে একাধিক ক্ষেত্রেই সমস্যার মুখে পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে।সূত্রের খবর, কলকাতা থেকে শনিবার উড়ান চলার কথা ছিল খুব বেশি হলে ১৪০টি। তার জায়গায় যাতায়াত করবে সাকুল্যে চারটি। এদিন শুধু এয়ার ইন্ডিয়ার হায়দরাবাদ ও বেঙ্গালুরুর উড়ান যাতায়াত করবে। বাকি সমস্ত বিমান বাতিল করা হয়।

তবে নিজেদের লোকসানের কথাই সবার আগে মাথায় আসে বিমান সংস্থা গুলির। উড়ান সংস্থাগুলির দাবি, প্রথমত বৃহস্পতিবার বিকেলের পরে টিকিট বিক্রি শুরু করলে বা নতুন করে উড়ান সূচি বানালে তাদের সদর দফতরের অনুমতি নিতে হত। তাই প্রতিটি উড়ান সংস্থাই জানিয়ে দেয়, শেষ মুহূর্তে উড়ান চালানোর চেয়ে বন্ধ রাখা ভাল। কারণ টিকিট বিক্রি শুরু করে যদি দেখা যেত যে মুষ্টিমেয় যাত্রী হয়েছে, তখন লোকসান সয়েও তাঁদের পৌঁছে দিতে হত গন্তব্যে।

রাজ্য প্রথমে জানিয়েছিল, শুক্র এবং শনিবার সার্বিক লকডাউন থাকবে। সেই মতো আগে থেকেই সব উড়ান সংস্থা তাদের উড়ান বাতিল করে। রবিবার ভোর থেকে আবার পরিষেবা চালু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজ্য জানিয়ে দেয়, শনিবারের লকডাউন প্রত্যাহার করা হচ্ছে। এরপর উড়ান সংস্থাগুলি তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে রাজি হয়নি। তাদের বক্তব্য, শেষ মুহূর্তে তাদের যাত্রী পেতে সমস্যা হবে। নতুন করে উড়ান-সূচি তৈরিও সম্ভব নয়। এই পরিস্থিতিতে এদিন কলকাতা থেকে তাদের যাবতীয় উড়ান বাতিল থাকবে বলে জানিয়ে দেয় ইন্ডিগো, স্পাইসজেট, গো এয়ার এবং এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া। শুধু এয়ার ইন্ডিয়া বৃহস্পতিবার রাতেই হায়দরাবাদ ও বেঙ্গালুরুর উড়ানের টিকিট বিক্রি শুরু করে। তারা জানিয়েছে, ওই দুই উড়ানের বেশির ভাগ টিকিটই বিক্রি হয়ে গিয়েছে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: