Education Opinion

কী হবে মাধ্যমিক-উছমাধ্যমিক পরীক্ষার ভবিষ্যৎ, শিক্ষক সংগঠন তরফে পাঠানো হয়েছে সুপারিশ

অনিশ্চয়তাতে পরীক্ষা, পড়ুয়াদের ভবিষ্যৎ.. দ্রুত নিতে হবে সিদ্ধান্ত

দেবশ্রী কয়াল : করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা ক্ষেত্রে পড়েছে বেশ প্রভাব। বর্তমান পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে আগামী বৎসর মাধ্যমিক(Madhyamik) এবং উচ্চমাধ্যমিক(Higher Secondary) পরীক্ষা বিষয়ে চলছে চিন্তা ভাবনা। ইতিমধ্যেই ২০২১ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নিয়ে রাজ্যের শিক্ষা দফতরের কাছে একগুচ্ছ সুপারিশ করেছেন প্রধান শিক্ষকদের সংগঠন। তাদের আর্জি বিধানসভা নির্বাচনের কথা বিবেচনা করে আমাগী বছর মার্চ মাসেই যেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নিয়ে নেওয়া হয়।

সাধারণত প্রতি বছরের ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পশ্চিমবঙ্গে মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হয়। আর উচ্চ মাধ্যমিক শুরু হয় মার্চের প্রথম সপ্তাহের শেষের দিকে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে এবার আর ২০২১ সালের মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের সময়সূচি এখনও ঘোষণা অবধি করেনি সংশ্লিষ্ট বোর্ড। ফলে আগামী বৎসর কবে পরীক্ষা হবে, এখন সেই প্রশ্নের উত্তরের অপেক্ষায় পড়ুয়া থেকে শুরু করে শিক্ষক, অভিভাবক সকলেই।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার সঙ্গে বেশ কয়েক লক্ষ পরীক্ষার্থীর বর্তমান ও ভবিষ্যত্‍ জড়িয়ে রয়েছে। স্টেট ফোরাম অফ হেডমাস্টারস্ অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেসস্-এর পক্ষে সওয়াল করা হয়েছে, আমাগী মার্চ মাসেই এই দুটি পরীক্ষা নিয়ে নেওয়ার জন্যে। একই সঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা একদিন অন্তর নেওয়া, পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং আলাদা আলাদা কেন্দ্রে একই দিনে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নেওয়া যায় কি না, তা ভেবে দেখার জন্য ফোরামের তরফে শিক্ষা দফতরের কাছে আবেদন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মোট সিলেবাসের ৭০ শতাংশ নিয়ে নতুন করে সিলেবাস ও নম্বর বিভাজন করে তা প্রকাশ করার পক্ষে জোর সওয়াল করেছে এই শিক্ষক সংগঠনটি।

তবে বর্তমান পরিস্থিতির জেরে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। চলতি বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা ক্লাস করেছে মাত্র আড়াই মাস। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা একদিনও স্কুলে গিয়ে তারা ক্লাস করার সুযোগই পায়নি। সেক্ষেত্রে এই দুই ক্লাসের সিলেবাস কীভাবে শেষ করে আর কোন সিলেবাসের ওপর পরীক্ষা নেওয়া হবে, তা নিয়েই তৈরি হয়েছে চূড়ান্ত অনিশ্চয়তা। তাই চেষ্টা করা হচ্ছে কালীপুজোর ছুটির পর অন্তত দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর ক্লাস চালু করতে। বাদবাকি ক্লাসগুলিতে পঠনপাঠন আপাতত অনলাইনেই চলবে। তবে এই বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: