Big Story

মানুষের দুর্দশা তৃণমূলের কাছে উৎসব : তির্যক মন্তব্য মনোজ ভট্টাচার্যের

মহামারীর সাথে ধুঁকছে রাজ্য, কিন্তু রাজ্য সরকার ব্যস্ত তাদের লাইভ ভিডিও নিয়ে

দেবশ্রী কয়াল : ২১শে জুলাই, ১৯৯৩ সাল শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে জানিয়ে স্মরণ করার দিন। কিন্তু আজকের বর্তমান দিনে তাঁদের কে নিয়ে শ্রদ্ধা কম আর উৎসব হচ্ছে বেশি। সকাল হতে না হতেই লক্ষ লক্ষ ভয়েস কল তৃণমূল কংগ্রেসের তরফ থেকে পৌঁছে যাচ্ছে মানুষের কাছে। বলা হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর লাইভ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে। কারন করোনার জেরে ময়দানে আসা সম্ভব না। যেভাবে কোটি কোটি টাকা খরচ করে আজ রাজ্য সরকার মানুষকে ফেসবুক লাইভের আমন্ত্রণ জানাচ্ছে তা দেখে মনে হচ্ছে যেন নির্বাচন এর আগের সময়। কারন সাধারণত ভোটের প্রচারের আগেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়। আর এই সকল সমালোচনায় করছে বিরোধী দল। তাঁদের মতে এ শোক প্রকাশের দিন নাকি উৎসবের দিন তা সত্যিই বোঝা কিন্তু দায়।

এই বিষয়ে ওপিনিয়ন টাইমস যখন আর এস পি এর রাজ্য সম্পাদক মনোজ ভট্টাচার্যের সাথে বলে, তখন তিনি বলেন, ” এই সরকারের কখনোই মানুষের কল্যাণ করার ইচ্ছা বা উদ্দেশ্য ছিল না, এরা তো শুরু থেকেই মানুষের স্বার্থের বিরুদ্ধে। তাই তাদের কাজ ও নিজেদের সংস্কৃতির মতো, মানুষের কাজ করার জন্য তারা কখনওই ছিল না। আজ করোনা মহামারীতে মানুষ মারা যাচ্ছেন, হসপিটালে বেড নেই, কত জন তো বিনা চিকিৎসায় প্রাণ হারাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে এই মহামারী রুখতে মোদী সরকার সম্পূর্ণ রূপে ব্যর্থ। আর ঠিক তেমনভাবেই ব্যর্থ এই রাজ্য সরকার। তৃণমূল সরকার কাজ তো করছে না উল্টে ২ দিনের লকডাউন করছে প্রত্যরক সপ্তাহে, জেক বাঁদরামো ছাড়া আর কী বা বলা যাবে। এই সরকার তো কেবল উৎসব করতে পারে, মানুষের সম্মন্ধে ভাবতে নয়। “

তিনি আরও বলেন, ” যখন আমরা এই সরকারকে মানুষের কথা ভাবতে বলেছিলাম, মানুষের চরম দুর্দশার কথা জানিয়েছিলাম তখন বলল আমরা কী করবো, শ্রাদ্ধ করবো নাকি এখন মানুষের। অবশ্য শ্রাদ্ধই তো করছে রাজ্য সরকার। যেভাবে মানুষ মারছে এরা তা তো শ্রাদ্ধেরই সমান। আজ এত কঠিন পরিস্থিতি, মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছেন, কিন্তু চিকিৎসা নেই। মানুষ ভয়ে সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ছেন। কোনো ট্রিটমেন্টই তো নেই, কী করবেন সাধারণ মানুষ ? আই সি এম আর বা হু যে যে নির্দেশিকা দিয়েছে তা কিন্তু কেন্দ্র বা রাজ্য কেউই সঠিক ভাবে পালন করেনি, করলে হয়ত এই দিন মানুষকে দেখতে হতো না। তাহলে হয়ত কাউকে এইভাবে মারা যেতে হত না !”

মনোজ বাবু বলেন, ” এই পরিস্থিতিতে কিভাবে এরা উৎসব পালন করতে পারে সত্যিই বুঝি না, এই উৎসবের কোনো মানেই হয় না। অবশ্য যে সরকার দুর্নীতিতে আপাদমস্তক নিমজ্জিত তাদের কাছে তো সবকিছুই উৎসব। আজ মানুষ যখন মারা যাচ্ছেন তখন সেই বিষয়ে উদ্যোগ না নিয়ে, সেখানে টাকা না দিয়ে, নিজের লাইভ হওয়ার প্রচার করে যাচ্ছেন। এরা কেবল দুর্নীতি, লুট করতে পারে। তাই এই সরকারের তরফ থেকে আমি কখনোই কিছু আশা করি না। ”

আজকের শহীদ দিবসে এই উদ্যোগের পিছনে রাজ্য সরকারের কী উদ্দেশ্য থাকতে পারে তা জিজ্ঞাসা করায়, মনোজ বাবু বলেন, ” শহীদ দিবসে রাজ্য সরকারের দুঃখ কোথায় ? তাদের কাছে তো উৎসবের দিন। এরা প্রত্যেকটি মুহূর্ত দুর্নীতি করে যাচ্ছে, আর সকল দুর্নীতিমূলক কাজকে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে। যা কোনো রাজনৈতিক দলের কখনোই কিন্তু উদ্দেশ্য হতে পারে না। মানুষের দুর্দশা এই সরকারের কাছে উৎসব ! ”

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: