narendra modi

নতুন বছরের প্রথম ‘মন কি বাত’ এ ‘আত্মনির্ভর ভারত’ এর প্রশংসায় মোদী

বিশ্বে দ্রুততম টিকাকরণ চলছে ভারতে, এমনটাই জানা যাচ্ছে তার কথায়

মধুরিমা সেনগুপ্ত: নতুন বছরের শুরুতেই ভারতে শুরু হয়েছে কোভিড টিকাকরণ। আর এই টিকাকরণে ভারত যে সবার থেকে এগিয়ে রয়েছে তা ‘মন কি বাত’ এ জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ইতিমধ্যেই ৩০ লাখের বেশি স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকাপ্রদান করা হয়ে গিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। নতুন বছরের প্রথম মন কি বাত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বে দ্রুততম টিকাকরণ চলছে ভারতে। অন্যান্য দেশের তুলনায় সবথেকে তাড়াতাড়ি নিজেদের নাগরিকদের টিকা দিচ্ছে ভারত এবং এটাই আত্মনির্ভর ভারতের পরিচায়ক বলে জানিয়েছেন মোদী। নিজের রেডিও অনুষ্ঠানে এদিন তিনি বলেন, ‘আমরা কোভিড ১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এক বছর পূর্ণ করেছি। আমরা শুধুমাত্র বিশ্বের সবথেকে ভাল টিকাকরণ করছি তাই নয় আমরা বিশ্বে দ্রুততম টিকাকরণ করছি। মাত্র ১৫ দিনে ৩০ লাখ করোনা যোদ্ধাকে টিকা দিয়েছি আমরা। এই পরিমাণ টিকাকরণ করতে আমেরিকার ১৮ ও ব্রিটেনের ৩৬ দিন সময় লেগেছে।’ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমর্থনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে এদিন পরিসংখ্যান দিয়ে দেখানো হয়েছে যে ২০ লাখ ও ৩০ লাখ টিকাকরণ বাকি সব দেশের থেকে অনেকটাই তাড়াতাড়ি হয়েছে ভারতে।

এই সাফল্যের কৃতিত্ত্ব দেশবাসীকেই দিয়েছেন মোদী। তার কথায় অতিমারীর মতো এতো কঠিন সময়েও সবাই যেভাবে এক জায়গায় এসে আত্মনির্ভর ভারতের মন্ত্র-কে তুলে ধরেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। এদিন তিনি বলেন, ‘মেড ইন ইন্ডিয়া ভ্যাকসিন আত্মনির্ভর ভারতের পরিচয় দেয়। এটা গর্বেরও পরিচায়ক। আপনারা নিশ্চয় লক্ষ্য করেছেন ভারত টিকাকরণের ক্ষেত্রে অন্য দেশকেও সাহায্য করতে পারছে। তার কারণ ভারত ওষুধ ও ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে আজ আত্মনির্ভর।’

গতকাল এনডিএ বৈঠকেও এই প্রসঙ্গে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠকের পরেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশী টুইট করে বলেন, ‘এনডিএ নেতাদের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীজি বলেছেন, করোনা পরবর্তী সময়ে একটা নতুন বিশ্বের সূচনা হয়েছে এবং এই নতুন বিশ্বে ভারতের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরের দশক যেমন খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল তেমনই আগামী দশকও খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা নীরব দর্শক হয়ে থাকতে চাই না। আমরা আমাদের সংস্কৃতি, বসুধৈব কুটুম্বকমের আদর্শকে অনুসরণ করে আমাদের যোগদান রাখব।’ গত সপ্তাহেই এই অতিমারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারতের ভূমিকার প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, বিশ্বে সবথেকে বেশি ওষুধ ভারতেই তৈরি হয় এবং তাই বিশ্বে রোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে ভারতের ভূমিকা অনস্বীকার্য। বহু দেশ যে এই কারণে ভারতকে ধন্যবাদ জানিয়েছে এমনটাই জানিয়েছেন মোদী।

Show More

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: