West Bengal

“মায়ের রান্নাঘর” চালু হবে সোমবার থেকে, মিলবে ৫ টাকায় ডিমের থালি

ন্যূনতম মূল্যে গরিবদের মুখে আমিষ খাবার তুলে দেবে মমতা সরকার

মধুরিমা সেনগুপ্ত: কিছুদিন আগেই বাজেট পেশ করার সময় তিনি কথা দিয়েছিলেন শহরবাসীর জন্য সস্তায় দুপুরের খাওয়ার দেওয়া হবে। আর সেই কথামতোই সোমবার থেকে চালু হবে মমতার ‘মায়ের রান্নাঘর’। প্রাথমিক ভাবে শহরের ১৬ টি বরোতে চালু হতে চলেছে এই ‘মায়ের রান্নাঘর’। সোমবার বিকেল তিনটেয় ভার্চুয়ালি এই প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিভিন্ন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞের মতে এই প্রকল্পটি নির্বাচনের আগে একটা মাস্টারস্ট্রোক হতে চলেছে।

পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানান, স্বাধীনতার পরে গরিবদের জন্য পাঁচ টাকায় পেট পুরে আমিষ খাওয়ার সুযোগ এই প্রথম সরকারি পর্যায়ে চালু হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে শহরের ১৬ টি বরোতে এই ‘মায়ের রান্নাঘর’ চালু হলেও আগামীদিনে ১৪৪ টি ওয়ার্ডেই এই রান্নাঘর চালু হবে। দুপুর একটা থেকে দুটোর মধ্যে মিলৰে পাঁচ টাকায় ডিম ভাত। পাশাপাশি দুশো গ্রাম চালের ভাতের সঙ্গে থাকবে ডাল এবং সব্জিও। জানা যাচ্ছে যে মরসুমে যে সব্জি মিলবে, তাই দিয়েই রান্না হবে ‘মায়ের রান্নাঘর’ -এ। এই বিষয় নিয়ে পুরসভার তরফে দেবাশিস কুমার বলেন, বরো এলাকার যে কোনও একটি পয়েন্ট থেকে দুস্থদের জন্য বিলি করা হবে এই রান্না করা খাবারের থালি। প্রসঙ্গত বছর দুয়েক আগে ত্রিধারা ক্লাবের উদ্যোগে শিশুমঙ্গল নার্সিংহোমের সামনে ছয় টাকায় নিরামিশ থালি দেওয়া হয়েছিল এই দেবাশিস কুমারের উদ্যোগেই। আর এবার পুরসভার উদ্যোগে ‘মায়ের রান্নাঘর’-এর ডিম ভাত বিলির তত্ত্বাবধানে রয়েছেন সেই দেবাশিস কুমারই।

সোমবার মুখ্যমন্ত্রীর উদ্বোধনের পরের দিন থেকেই অর্থাত্‍ মঙ্গলবার থেকেই প্রতিদিন এই ডিম-ভাতের থালি পাওয়া যাবে ঘোষিত বরোগুলির নির্দিষ্ট জায়গায়। এতদিন পর্যন্ত স্কুলগুলি বন্ধ থাকায় মিড্ ডে মিলের রান্না করা খাবার ছাত্রছাত্রীদের জোগান দিচ্ছিল রাজ্য সরকার। এমনকী করোনার সময়ে স্কুল বন্ধ থাকাকালীন চাল-ডাল-আলু প্রতিমাসে পড়ুয়াদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছিল রাজ্য সরকার। এবার রান্না করা আমিষ খাওয়ার দুঃস্থ মানুষের মুখে তুলে দিচ্ছে রাজ্য সরকার।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: