Health

সাধারণ মানুষের জন্য এন-৯৫ মাস্ক নয়, কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা ?

করোনা সংক্রমণ রোধে বাড়ির তৈরী মাস্ক বেশ কার্যকরী

দেবশ্রী কয়াল : হু হু করে বেড়ে চলেছে করোনার সংক্রমণ। পরিস্থিতি সামাল দিতেই সপ্তাহে দুদিন করে সম্পূর্ণ লকডাউন ও জারি করেছে রাজ্য সরকার। এই পরিস্থিতিতে বারবার মানুষকে বলা হচ্ছে ফেস মাস্ক ব্যবহার করার জন। কারন ফেস মাস্ক আজকের দিনে সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মাস্ক ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হওয়া কিন্তু ভীষণ বিপজজনক বলে সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু কোন মাস্ক ব্যবহার করলে ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ কার যাবে, সেই নিয়ে প্রথম থেকেই রয়েছে প্রশ্ন। বলা হয় ভালব রেসপিরেটর যুক্ত এন-৯৫ মাস্কের ব্যবহার এ ক্ষেত্রে বেশ কার্যকরী। কিন্তু চলতি সপ্তাহের প্রথমেই কেন্দ্রীয় সরকার একটি নির্দেশিকায় সতর্ক করে জানায়, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে মোটেও কার্যকরী নয় এন-৯৫ মাস্ক। একই সঙ্গে কারণও জানিয়েছে কেন এই জাতীয় মাস্ক সংক্রমণ আটকাতে ব্যর্থ। তাহলে এখন প্রশ্ন হচ্ছে কী মাস্ক ব্যবহার করবেন মানুষ ?

স্বাস্থ্য মন্ত্রক চলতি সপ্তাহে যে নির্দেশিকা জারি করেছে সেই নির্দেশিকার সঙ্গে সহমত পোষণ করেছে বিশেষজ্ঞ চিকিত্‍সকরাও। তাঁদের মতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কোনও রোগী যখন শ্বাস ত্যাগ করেন তখন তাঁর শরীর থেকে নির্গত কার্বন-ডাই-অক্সাইড ভালব রেসপিরেটরযুক্ত এন৯৫ মাস্কের ভালবের মধ্যে দিয়ে বার হয়ে যায়। আর সেই বাতাসে থাকা করোনার জীবাণু সহজেই ছড়িয়ে পড়ে। যা অজান্তেই আক্রান্ত ব্যক্তির পাশে থাকা মানুষদের সংক্রমিত করেন। সুতরাং সাধারণ মানুষের পক্ষে কিন্তু এই মাস্ক বিপজজনক হতে পারে।

এই বিষয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলেন, যে মাস্ক সহজেই পরিষ্কার করা যায় সেই জাতীয় মাস্কই ব্যবহার করা উচিত্‍। তবে অবশ্যই সেই মাস্কটি ব্যবহারকারীর মুখের সঙ্গে ফিট হতে হবে। অনেক চিকিত্‍সকই জানিয়েছেন করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সবথেকে ভালো কার্যকরী সার্জিক্যাল মাস্ক। তবে এই মাস্ক পুনরায় ব্যবহার না করাই ভালোই বলে পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা।

চিকিৎসকদের মতে, বাড়িতে তৈরী মাস্ক কিন্তু বেশ ভালো। কারন এই মাস্ক গুলি সহজেই পরিষ্কার করা যায়, একবার ব্যবহারের পর তা সহজেই পরিষ্কার করা যায়। বাড়ির বাইরে এ মাস্কের ব্যবহার যথেষ্ট উপযোগী। এবং তাতে এই ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করাও সম্ভব হয়। যদি কারোর মাস্ক কেনার সমস্যা থাকে হলে পরিষ্কার রুমাল ও কিন্তু মুখে বাঁধা যায়। বিশেষজ্ঞদের কথায় ব্যবহারের পর মাস্ক সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলা, রোদে শুকনো করা কিন্তু অত্যন্ত জরুরি। অনেক চিকিত্‍সক আবার গরম জলে মাস্ক ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়েছেন। বর্ষাকালে মাস্ক শুকনো করার জন্য ইস্ত্রি করার পরামর্শও দিয়েছেন অনেক চিকিত্‍সক। তবে এইজাতীয় মাস্ক কখনই স্বাস্থ্য কর্মীরা ব্যবহার করতে পারবেন না, বলে স্পষ্টত জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: