Nation

বিল নিয়ে বিরোধিতা করায়, বিরোধীদের আক্রমন প্রধানমন্ত্রীর

বিলের জেরে নাকি কৃষিদের আর্থিক অবস্থা উন্নতি হবে, বিরোধীরা নিজেদের স্বার্থের জন্যে ভুল বোঝাচ্ছে মন্তব্য মোদীর

দেবশ্রী কয়াল : গতকাল রাজ্যসভাতে কৃষি বিল পাস হওয়ার সময় থেকে তার তীব্র বিরোধিতা জানিয়েছে বিরোধী দলগুলি। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন বিরোধী দলের সাংসদরা। এবার তাদেরকেই একহাতে নিলেন প্রধানমন্ত্রী। আজ সোমবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে নরেন্দ্র মোদী বিরোধী দলের উপর আক্রমন শেনে বলেন, ”কৃষকদের ভুল বোঝাচ্ছেন বিরোধীরা, তাঁদের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলার ভয়েই এখন প্রতিবাদ করছেন বিরোধীরা”।

গতকাল রবিবার বিরোধীদের তুমুল হইচইয়ের মধ্যেই রাজ্যসভায় পাস হয়ে গিয়েছে কৃষি বিল। কৃষি বিল নিয়ে তুমুল আপত্তি ছিল বিরোধীদের। রবিবার অধিবেশন কক্ষে বিলের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানাতে থাকেন বিরোধী তৃণমূল থেকে শুরু করে অন্য দলের সাংসদরা। এরপর ডেপুটি চেয়াম্যানের সাথে অভব্য আচরণের জন্য এবং তাঁর উপর অত্যাচারের জন্য অভিযোগ ওঠে। তার জেরেই রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু, ৮জন সাংসদকে রাজ্যসভা থেকে করেন বরখাস্ত।

এদিকে, কৃষি বিল নিয়ে আপত্তি দেখানোতে প্রধানমন্ত্রীর রোষের মুখে পড়েছেন বিরোধী দলগুলি। এদিন নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘কৃষকদের স্বার্থে এই কৃষি বিল অত্যন্ত সহায়ক একটি ভূমিকা নেবে। একুশ শতকে কৃষকদের আয় বাড়ানোর সংস্থান রয়েছে এই বিলে।” এরপর তিনি আরও বলেন, ”এই বিলের জেরে দেশের কৃষক সমাজের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হবে। বিলটি আইনে পরিণত হলেই দেশের যে কোনও প্রান্তে নিজেদের উত্‍পাদিত ফসল বিক্রি করতে পারবেন কৃষকরা। বিরোধীরা কেবলমাত্র নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধিকরার জন্যেই এখন চাষিদের ভুল বোঝাচ্ছেন।”

কিন্তু কালকের এই ঘটনার পর চারিদিকে পড়ে গেছে শোরগোল। কৃষকরা দিয়েছেন বন্ধের জন্যে ডাক। বিদ্রোহের জন্যে প্রস্তুত কৃষকরা। তবে পশ্চিমবঙ্গে বন্ধ হবে না, সেখানে আগামী ২৭শে সেপ্টেম্বর বেলা ১২টা থেকে টানা ৪ ঘন্টা ধরে হবে ধর্মঘট। আগামী দিনে এই বিলের কারনে আর কী কী পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে সেই নিয়ে রয়ে যাচ্ছে আশঙ্কা। আদেও এই বিল আইনে পরিণত হবে কী না তা এখন দেখার পালা।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: