Big Story

এক নজরে নারদ স্টিং অপারেশন

কি হয়েছিল ঘটনার পরম্পরা

১) কারা করেছিলেন এই নারদ স্টিং অপারেশন ?

২০১৪ সালে ম্যাথু স্যামুয়েল (Mathew Samuel) এবং তাঁর সহকর্মী অ্যাঞ্জেল আব্রাহাম প্রায় বাহান্ন ঘণ্টা ধরে আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত একটি স্টিং অপারেশন করেন।

২) কি দেখা গেছিল এই ইউটুব ভিডিও তে ?

গোপন ক্যামেরায় রেকর্ড করা ওই ভিডিওতে একাধিক নেতা-মন্ত্রীকে আর্থিক লেনদেন করতে দেখা গিয়েছিল। ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র, মুকুল রায়, শুভেন্দু অধিকারী, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, সুলতান আহমেদ, অপরূপা পোদ্দার, শঙ্কুদেব পণ্ডা, আইপিএস অফিসার এস এম এইচ মির্জাকে টাকা নিতে দেখা যায়। বিপুল পরিমাণ ওই অর্থের বিনিময়ে কাজ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিতেও শোনা যায়।

৩) এই কাজের বরাত কে দিয়েছিল ম্যাথু স্যামুয়েল (Mathew Samuel) কে ?

কলকাতা হাই কোর্টের তরফে বারবার এ বিষয়টি জানতে চাওয়া হয় তাঁর কাছে। তিনি দাবি করেন স্টিং অপারেশনে ব্যবহার হওয়া ৮৫ লক্ষ টাকা সাংসদ কে ডি সিংয়ের সংস্থার কাছ থেকে পেয়েছেন। ম্যাথুকে যাচাই করতে কে ডি সিংয়ের সংস্থাকে নোটিস পাঠানো হয়। তবে ম্যাথুর দাবি খারিজ করে দেয় কে ডি সিংয়ের সংস্থা। তারপর থেকে নোটিস পাঠানো হলেও একাধিকবার হাজিরা এড়ান ম্যাথু।

৪) কোন সময়ে এই স্টিং অপারেশনের উদ্যোগ নেন ম্যাথু স্যামুয়েল ?

স্ট্রিং অপারেশনের ভিডিও প্রকাশ করে ম্যাথু স্যামুয়েল জানিয়েছিলেন, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৬ সালের ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত তাঁরা ওই স্ট্রিং অপারেশন চালিয়েছিলেন।

৫) মোট কত টাকা ঘুষ দেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল ?

কলকাতা হাই কোর্টের তরফে বারবার এ বিষয়টি জানতে চাওয়া হয় তাঁর কাছে। তিনি দাবি করেন স্টিং অপারেশনে ব্যবহার হওয়া ৮৫ লক্ষ টাকা সাংসদ কে ডি সিংয়ের সংস্থার কাছ থেকে পেয়েছেন। ম্যাথুকে যাচাই করতে কে ডি সিংয়ের সংস্থাকে নোটিস পাঠানো হয়। তবে ম্যাথুর দাবি খারিজ করে দেয় কে ডি সিংয়ের সংস্থা।

৬) কলকাতা হাইকোটে কাদের আবেদনের ভিত্তিতে নারদ কাণ্ডের বিচার চলছে ?

নারদ স্টিং অপারেশন নিয়ে ২০১৬ সালের ১৭ জুন কংগ্রেস এবং বিজেপি পৃথক পৃথক ভাবে কলকাতা হাইকোর্টে তদন্তের আর্জি জানিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা করে।

৭) কোন কোন সংস্থা এই তদন্তের দায়িত্বে ?

মহামান্য কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে সিবিআই, ইডি নারদ ঘুষ কাণ্ডের তদন্ত শুরু করে।

৮) কবে প্রথম এফআইআর করেছিলেন সিবিআই ?

১৩ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। স্টিং অপারেশনের ফুটেজের ভিত্তিতেই এফআইআর করা হয়েছে বলে খবর। যে ১৩ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ১২ জনই তৃণমূলের নেতা-নেত্রী-বিধায়ক-মন্ত্রী-সাংসদ।

৯) নারদ স্ট্রিং কাণ্ডে প্রথম কে গ্রেফতার হন ?

বিজেপি নেতা মুকুল রায় ঘনিষ্ঠ আইপিএস অফিসার এস এম এইচ মির্জাকে গ্রেফতার করে সিবিআই।

১০) তদন্তকারী সংস্থা কি ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষা করে কি পাওয়া গেল ?

স্টিং ফুটেজ ভয়েস রেকর্ড ল্যাবে পরীক্ষা করার পর কণ্ঠস্বর মিলে গিয়েছে।
যেখানে বসে টাকা নেওয়া হয়েছে মিল রয়েছে সেই জায়গার সঙ্গেও।
যে কারণ দেখিয়ে টাকা আদায় করা হয়েছিল, তার সঙ্গে হিসেবে গরমিল রয়েছে।
(সিবিআই সূত্রে খবর)

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: