Big Story

ইতি হলো এক “হলুদ বসন্ত ” যুগের , প্রয়াত বুদ্ধদেব গুহ

গতকাল রাত ১১টা নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন এই প্রবাদপ্রতিম সাহিত্যিক

ইন্দ্রানী চক্রবর্ত্তী : গত এপ্রিল মাসেই করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন প্রবীণ সাহিত্যিক বুদ্ধদেব গুহ। প্রায় ৩৩ দিন জীবনযুদ্ধের পর জিতে ফিরেছিলেন তিনি । কিন্তু শেষরক্ষা আর হলো না। ৪ই অগাস্ট শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার জন্য বেলভিউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে । গতকাল রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। পোস্ট-কোভিড নানা সমস্যাতেও ভুগছিলেন ; মূত্রনালীতে সংক্রমণের পাশাপাশি লিভার ও কিডনির সমস্যাও ছিল তাঁর। বালিগঞ্জের সানি পার্কের ফ্ল্যাটে আনা হয়েছে তাঁর দেহ। এরপরই শেষকৃত্যের জন্য নিয়ে যাওয়া হবে কেওড়াতলা শ্মশানে।

কার্যত শেষ হল একটা যুগ। গভীরভাবে শোকাহত পাঠকমহলও।বহু কিশোর-কিশোরীর বয়ঃসন্ধিতে উত্তরণের পথের সঙ্গী বুদ্ধদেব গুহর “মাধুকরী”, “বাবলি “, “একটু উষ্ণতার জন্য ” প্রভৃতির এর মতো উপন্যাস । প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য সাহিত্যজগতে তাঁর অনন্য সৃষ্টি ঋজুদা। ঋজুদার হাত ধরে পাঠকরা তাদের রোজনামচার জীবনকে ছুটি দিয়ে ঘুরে আসে অরণ্যে, কাটিয়ে আসে এক অন্যরকম জীবন; আবার কখন তারা যেন ফিরেও আসে বাস্তবের মাটিতে। প্রকৃতি ও নারীকে একই সুতোয় মিলিয়ে দিয়েছেন এই সাহিত্যিক। প্রেম, মনকেমন, সম্পর্ক ,জীবনের ওঠা পড়ার গতিকে এমন ছন্দে পাঠকের কাছে তুলে ধরেছেন যাতে পরিণত হয়েছে পাঠকমন। তাঁর সৃষ্টি পাঠকদের পাওয়া- না পাওয়া কে সাহিত্যরূপ দিয়ে তাদের এক বাস্তবময় জীবন-অভিযানের যাত্রী করে তুলেছে ।

সমকালীন বাংলা সাহিত্যে অবাধ বিচরণের পাশাপাশি বুদ্ধদেব গুহ গান, ছড়া ,ছবির মতো অন্যান্য ক্ষেত্রেও সৃজনশীলতার প্রমান রেখেছেন। নিজের বেশ কিছু বইয়ের প্রচ্ছদ নিজেই এঁকেছিলেন। রবীন্দ্রসঙ্গীত থেকে শুরু করে পুরাতন বিভিন্ন গানে তিনি ছিলেন দক্ষ। তবে সাহিত্যজগতে তাঁর বেশিরভাগ লেখাতেই খোঁজ মিলেছে প্রকৃতি ও মানুষের নিবিড় সম্পর্কের। তাঁর প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ “জঙ্গলমহল”। “হলুদ বসন্ত ” উপন্যাসটির জন্য তিনি পেয়েছিলেন আনন্দ পুরস্কার। তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ শিল্পীমহল। শোকবার্তা জানিয়েছেন মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: