West Bengal

সরকার মিথ্যাচার করে উদ্বাস্তুদের দাবি অবহেলা করতে পারে না, দিতে হবে তাদের স্বীকৃতি

"দাবি দিবসে" উদ্বাস্তুদের দাবি নিয়ে ডেপুটি ও বিক্ষোভ প্রকাশের কর্মসূচি UCRC-র

দেবশ্রী কয়াল : করোনা পরিস্থিতিতে কেমন আছেন উদবাস্তুরা ? আদেও কী সরকার দিচ্ছে তাদের দিকে লক্ষ্য ? তাই আবারও তাদের দাবি নিয়ে কিন্তু হাজির, উদবাস্তু গণ সংগঠন অর্থাৎ UCRC যাঁরা উদবাস্তুদের দাবি নিয়ে, তাঁদের অস্তিত্ব নিয়ে লড়াই করে আসছে সেই ১৯৫০ থেকে। বর্তমানে যে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে সবাই যাচ্ছে তার মধ্যে দিয়েও তাঁরা কিন্তু নিজেরদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। গত ২০ শে জুন বিশ্ব উদ্বাস্তু দিবসের দিন ও তাঁরা নানান বিক্ষোভ, প্রতিবেদনের মাধ্যমে সামাজিক কাজ করে। অবশ্যই লকডাউনের নিয়ম কে উপেক্ষা না করে, সকল সামাজিক দূরত্ব বিধির নিয়ম মেনে।

আগামী ১২ই আগস্ট এই সংগঠনের প্রতিষ্ঠা দিবস আর তার সাথেই ২৫ শে আগস্ট উদবাস্তু মানুষ গুলোর ” দাবি দিবস “। আর এই পরিস্থিতিতে কিন্তু লকডাউন ও বাকি সকল নিয়ম মেনেই, ডেপুটি ও বিক্ষোভ প্রকাশের কর্ম সূচি করতে হবে। এই সকল উদবাস্তু মানুষ গুলোর কথা ভাবতেই হবে রাজ্যকে-কেন্দ্রকে। আর তারই জন্যে এই সংগঠন থেকে একটি চিঠি লেখা হয় জেলা সম্পাদক ও কাউন্সিল সদস্যদের প্রতি।

আজকের এই কঠিন পরিস্থিতিতে, উদ্বাস্তুরা কিন্তু অসহায়। লকডাউনে অনেকের নেই কাজ, ঠিক মতো জুটছে না খাবার, নেই থাকার জায়গা। বেকার হয়ে রয়েছেন তাঁরা। নেই কোনো ভবিষ্যৎ। এই মুহূর্তে ৫০০টি কলোনি যেখানে উদ্বাস্তুরা থাকেন তাঁদের কেন্দ্র বা রাজ্য সরকার কেউ দেয়নি স্বীকৃতি, কীহবে তাঁদের ? মাত্র তো থাকার, নাগরিকত্বের আর কাজের দাবি জানিয়েছে। শুধু নিজেদের পুনর্বাসন এর দাবি। কিন্তু সেগুলিও দিচ্ছে না সরকার।

এই বিষয়ে UCRC এর সেক্রেটারি দীপক ভট্টাচার্যের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ” প্রতি বছরের মতো এই বছর ও আমাদের সংগঠন কিন্তু এই উদ্বাস্তু মানুষ গুলোর দাবি সরকারের কাছে তুলে ধরবে। দেশভাগের পর থেকেই এই মানুষ গুলি বহু সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন, আর এখনও হয়েই চলেছেন। তাঁদের পুনর্বাসনের যে সমস্যা তার সমাধান এখনও করেনি সরকার। তাঁদের জন্য অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে ৫ হাজার ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দ্রয়েছে তাঁর কিছুও কিন্তু এখনও পায়নি তাঁরা। না এরা ঠিক করে পায় খাবার, রেশন, জামা-কাপড়। সবার কিন্তু দলিল ও নেই। আর যাঁদের দলিল রয়েছে তাদের পর্চা নেই প্রস্তুত। কত মানুষ তো এখনও ক্যাম্পে থাকে। অভাবে সংসার তাঁদের। কিন্তু কেউ ফিরে ও তাকে না। “

বর্তমানে আম্ফান, করোনা ও লকডাউন নিয়ে যে পরিস্থিতি সেখানে উদ্বাস্তুদের অবস্থা বলতে গিয়ে দীপক বাবু বলেন, ” আম্ফানে এত বিপর্যয় ঘটেছে , কিন্তু কি দেখতে আসেনি তো। কত মানুষ ঘর ছাড়া হয়েছেন, কতদিন অনাহারে কেটেছে তাঁদের। কিন্তু আসেনি তাঁদের জন্য কোনো ত্রাণ। এই করোনাতে সকলের ভয়ভীত অবস্থা। কিন্তু হবে উদ্বাস্তুদের / তাঁদের তো চিকিৎসার কোনো টাকা নেই। লকডাউনের জেরে কাজ না থাকায় অবস্থা হয়েছে আরও নাজেহাল নেই কোনো কর্মসংস্থান। সেখানে তাঁদের জন্য চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই। আজ কারোর করোনা হলে, সে কী করবে ? কীভাবে চিকিৎসা করবে ? তাঁদের জন্য চিকিৎসার, তাঁদের পুনর্বাস্থানের, তাঁদের কর্মসংস্থানের দাবি আমরা জানাচ্ছি। ”

এনআরসি এবং এনপিআর নিয়ে প্রশ্ন করা হলে দীপক বাবু উত্তর দেন, ” না আমরা কেউ ভুলেছি আর না সরকার ভুলেছে এই বিষয়। তবে কী সত্যিই একটা দলিলের টুকরো কারোর নাগরিকত্ব বিচার করতে পারে ? তাঁরাও তো মানুষ। সেই দেশভাগের পর থেকে এখানে রয়েছে। তাঁরাও তো এখানে নাগরিক আজ। কিন্তু কেন্দ্র সরকার কী দেখতে চায় ? দলিল। যেখানে এখনও ৭৫ হাজার দলিল স্বীকৃতির অপেক্ষায় রয়েছে। ৫০০টি কলোনী ই তো এখন কেন্দ্র বা রাজ্যের কোনো স্বীকৃতি পায়নি। এই নিয়ে যত বার সরকারকে বলা হয়েছে, তাঁরা মানুষকে কেবল ভাঁওতা দিয়ে গেছে। মমতা বন্দোপাধ্যায় বলছে আমি সবাইকে, সকল কলোনিকে স্বীকৃতি দিচ্ছি, যেটা আদেও তা করছেন না। নিয়ম কিন্তু পাল্টিয়েছে, সরকার এখন নিজের জমি ছাড়া কাউকেই অধিগ্রহণ করতে পারে না, কিন্তু নির্বাচনের প্রাক মুহূর্তে ভোট আশায় মানুষকে ভাঁওতা দিচ্ছে, মিথ্যাচার করছে এই রাজ্য সরকার। আমরা বারবার সবাইকে সচেতন করার চেষ্টা করেছি। এই ফাঁদে পা না দেওয়ার জন্য। আর এদিকে বিজিপি এবং আরএসএস অন্যই চক্রান্ত বুনে চলেছে। সর্ব ক্ষেত্রে হিন্দুত্ববাদের চেষ্টা করছে, মিথ্যে প্রোপাগান্ডা করে বেড়াচ্ছে, মানুষের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লাগানোর প্রচেষ্টায় এরা। এই উদ্বাস্তুদের ব্যবহার করা হচ্ছে, করে শেষে তাদের অবহেলা করা হচ্ছে। এই অবহেলার বিরুদ্ধেও কিন্তু আমাদের দাবি। আর এই যে নাগরিকত্বের জন্য যে এনআরসি বা এনআরপি করতে চাইছে কেন্দ্র সরকার তা আমরা হতে দেব না। আগেও যেমন লড়াই চালিয়েছি সেভাবে চালিয়ে যাবো। কিন্তু উদ্বাস্তুদের তাদের অধিকার থেকে চ্যুত হতে দেব না। তাদের দাবি আমরা পাইয়ে দেব। আর এবারের দাবি দিবসেও এই গুলিই থাকবে আমাদের দাবি। “

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: