Foods

দীপাবলি ভাইফোঁটার মিষ্টি মুখের চিন্তা? জেনে নিন মিষ্টি র সাতসতেরো

জেনে নিন কোথায় পাবেন কি মিষ্টি, করোনা আবহে দীপাবলি ও ভাইফোঁটার মিষ্টি এবং খাবারের গুণগতমানও সরজমিনে পরীক্ষা করে দেখবে কলকাতা পুরসভা

পৃথা কাঞ্জিলাল : “ঘ্রাণেনং অর্ধভোজনম্” কথাটি আমরা অনেকেই শুনেছি। মিষ্টি র দোকানের সামনে দিয়ে গেলে এই প্রবাদটি হয়ে যায় সত্য। আগামীকাল দীপাবলি এবং কিছুদিন পর ভাইফোঁটা। মিষ্টি সাজিয়ে দিতে হবে মায়ের পাতে এবং ভাইদের পাতেও। করোনা কালে পুজো কমিটি থেকে বোনেদের একটাই চিন্তা কিভাবে তারা ‘মিষ্টি ম্যাজিকে’ ভোলাবেন। চিন্তা না করে দেখে নিন কোথায় কি পাবেন!

বাঞ্ছারাম (Banchharam)

এই চরম মহামারীর সময় বাঞ্ছারামের অন‌্যতম কর্ণধার শুভজিত্‍ ঘোষ জানালেন, মানুষের অবসাদের মুক্তির পথ মিষ্টি। আগেকার দিনে মানুষ অসুস্থ হলে তার পথ‌্য হিসাবে ছানা খেত । কিন্তু সেকথা মানুষ ভুলে গিয়েছে। এখন মানুষ সবাই কৃত্রিমভাবে আরোগ‌্যলাভে ব্যস্ত। নতুন এই মহামারীতে একে অপরের সঙ্গে আলাপ তো দূরের কথা, সামনা সামনি আসাও বারণ। কিন্তু আমরা যদি না এসে তাকে মিষ্টি পাঠাই, তাহলেও মনের দিক থেকে অনেক কাছাকাছি আসা যায়। সুতরাং শুদ্ধ ছানা, ভাল ঘি, ভাল দুধ, ভাল মধু দিয়ে যে মিষ্টান্ন তৈরি হয়, তা খেলে শরীর, মন দুই-ই ভাল থাকে। ৭

বলরাম মল্লিক ও রাধারমণ মল্লিক (Balaram Mullick & Radharaman Mullick)

কলকাতার ১৩৬ বছরের ঐতিহ‌্যবাহী মিষ্টান্ন প্রতিষ্ঠান তাদের গুণমান অটুট রেখে চলেছেন চার পুরুষ ধরে। বর্তমানে ভবানীপুরের বলরাম মল্লিক ও রাধারমণ মল্লিকের কর্ণধার সুদীপ মল্লিক জানালেন, দীপাবলি ও ভাইফোঁটা উপলক্ষে নতুন নতুন মিষ্টি তৈরি করে থাকেন। এবছর ভাইফোঁটায় স্পেশ্যাল মিষ্টির তালিকায় রয়েছে ভাইফোঁটা সন্দেশ, খাজা, হোয়াইট চকোলেট অমৃতি, সীতাফল সন্দেশ, অরেঞ্জ রাবড়ি সুফলে, বেক মিহিদানা, চকোলোভা ইত‌্যাদি। ভবানীপুরে এদের মিষ্টির মূল শোরুম নতুন করে পাঁচতলা অত‌্যাধুনিক মিষ্টি হাব তৈরি হয়েছে। ছানার পাক থেকে মিষ্টি তৈরির সবকিছু বিদেশি অত‌্যাধুনিক স্বয়ংসক্রিয় মেশিনে। মিষ্টি তৈরি ও প‌্যাকেজিং সবটাই করা হবে মেনে পরিষ্কার ভাবে । ভবানীপুর ছাড়াও কলকাতার কসবা, বালিগঞ্জ, লেক গার্ডেন্স ও পার্ক স্ট্রিটে এদের শাখা আছে।

নলীন চন্দ্র দাস অ‌্যান্ড সন্স (Nalin Chandra Das and Sons)

এই মহামারীর মধ্যেও এই প্রতিষ্ঠান ১৯৩ বছরের ঐতিহ‌্য বহন করে চলেছে। বর্তমানে নিত‌্যনতুন সংমিশ্রণে আকর্ষণীয় ও সুস্বাদু সন্দেশ আবিষ্কার করেছে এই প্রতিষ্ঠান। নলীন চন্দ্র দাস হলেন সন্দেশ ও চকোলেট ফিউশন মিষ্টির পথ প্রদর্শক । ভাইফোঁটার মিষ্টিমুখের তালিকায় থাকছে চকোলেট তালশাঁস, বিদেশি স্ট্রবেরি ও ব্ল‌্যাকবেরি তালশাঁস, নলেন গুড়ের তালশাঁস, মৌসুমি, বাটার স্কচ, ব্ল‌্যাক ফরেস্ট সন্দেশ, কেশর বাটার মিল্ট সন্দেশ এবং ফ্রেশ ছানার পায়েস। আবার খাব মালাই রোল, দিলখুশ, পারিজাত ইত‌্যাদি। সংস্থ‌ার কর্ণধার তপন দাস জানালেন, সন্দেশের উপর নিরন্তর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে নতুন কিছু জিভে জল আনা সন্দেশ উপহার দিচ্ছেন তাঁরা। রবীন্দ্র সরণির নতুন বাজারের পাশাপাশি আরও ছ’টি নতুন শাখা তৈরি করেছে এই প্রতিষ্ঠান।

শ্রীহরি মিষ্টান্ন ভাণ্ডার (Sree Hari Mistanna Bhandar)

কলকাতার ঐতিহ্যপূর্ণ মিষ্টির দোকানগুলির মধ্যে অন্যতম হল ভবানীপুরের ১০৯ বছরের শ্রীহরি মিষ্টান্ন ভাণ্ডার। ম্যানেজার সুব্রতবাবুর কথায়, কালীপুজো ও ভাইফোঁটা উপলক্ষে থাকতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের প্রসিদ্ধ বড় ল্যাংচা। থাকবে কমলাভোগ, মালাইচপ, ভেজ সুইটস, হরিভোগ, রসনাভোগ এবং নতুন গুড়ের রসগোল্লা ও মনোহরা। আরও জানতে চলে যেতে হবে ভবানীপুর থানার ঠিক বিপরীতে।

তাহলে মিষ্টির চিন্তা না করে চলে যান প্রসিদ্ধ মিষ্টির দোকানগুলিতে আর খুঁজে নিন আপনার মনের মতন মিষ্টি এবং পাতে সাজিয়ে দিন ইচ্ছেমতন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: