Big Story

শেষের শুরু, অভিমান-অভিযোগে দলের বাইরে পা রাখলেন শুভেন্দু

পরিবারতন্ত্রকে সামনে রেখেই অভাব অভিযোগে একঘরে মমতা, আগামী পাঁচ মাস কীভাবে চলবে জোর জল্পনা নিয়ে কালীঘাটে বৈঠক

দেবশ্রী কয়াল : শেষ পর্যন্ত অবসান হল সকল জল্পনার, পড়ল এবার তাতে সরকারি সিলমোহর। এই মুহূর্তে সকলের নজর শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) ঘিরে। তিনি আগেই ছেড়েছিলেন রাজ্য সরকারের নিরাপত্তা এবার ছাড়লেন নিজের মন্ত্রীর দায়িত্ব। আজ শুক্রবারেই নবান্নে (Nabanna) গিয়ে নিজের ইস্তফাপত্র পেশ করেন শুভেন্দু। সেচ,পরিবহণ, জলসম্পদ উন্নয়ন দপ্তরের দায়িত্বে ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। আর কোনও দপ্তরই নিজের হাতে রাখলেন না। তবে না, এখনও ছাড়েননি নিজের বিধায়কের পদ। তবে রাজনৈতিক মহলের গুঞ্জন ভোটের আগে আগেই সেই পদ ছেড়ে বিজেপি (Bjp) শিবিরে যোগদান করবেন শুভেন্দু। অপেক্ষা কেবল সঠিক সময়ের। এদিন শুভেন্দুর মন্ত্রী পদ ছাড়ার পর থেকেই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জোরালো জল্পনা।

গতকাল বৃহস্পতিবার এইচআরবিসি’র (HRBC) চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তখন ইঙ্গিতটা খানিক স্পষ্ট হচ্ছিল। ধীরে ধীরে নিজের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়ে দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াচ্ছেন তিনি। তবে আজ শুক্রবার সকালে রাজ্য সরকারের নিরাপত্তা ছেড়ে দিয়ে সেই ইঙ্গিতকে আরও স্পষ্ট করেন রাজ্যের সেচ ও পরিবহণ মন্ত্রী। আর শেষমেশ বেলার দিকে নবান্নে গিয়ে সরাসরি মন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফাপত্র পেশ করলেন শুভেন্দু অধিকারী। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee) চিঠিতে জানান ধন্যবাদ। এর পর রাজ্যপালকেও একটি কপি ইমেল করেন। রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় (Jagdeep Dhankar)তা পেয়ে একটি টুইট করে জানান। এদিন শুভেন্দুর পদত্যাগপত্র গ্রহণও করেছেন রাজ্যপাল।

বহু পূর্বেই দলের সাথে শোভনের দূরত্ব তৈরী হয়েছিল। অনেক আগেই মনে করা হয়েছিল তিনি এবার তৃণমূল ছেড়ে গেরুয়া দলে যোগদান করবেন। আর এদিন তা ইস্তফার সাথে একদম স্পষ্ট হয়ে যায়। ইতিমধ্যেই দলীয় বৈঠক ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। জরুরি বৈঠকে উপস্থিত তৃণমূলের একাধিক শীর্ষ নেতৃত্ব। রয়েছেন সুব্রত বক্সি, অরূপ বিশ্বাস, ফিরহাদ হাকিম। এছাড়াও পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ আরও কিছু মন্ত্রীকে ইতিমধ্যে জরুরি ওই বৈঠকে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জানা যাচ্ছে, জরুরি এই বৈঠকে রয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও। বৈঠকে শুভেন্দু অধিকারী নিয়েই আলোচনা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। মূলত কি কারণে শুভেন্দুর ক্ষোভ তা জানার চেষ্টা করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর এবার হলদিয়া ডেভেলপমেন্ট অথরিটির চেয়ারম্যান পদ থেকেও ইস্তফা দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। একের পর এক পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে এবার কি দল ছাড়ছেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক? হচ্ছে বহু জল্পনা। অনেকে বলছেন হয়ত শনিবার তিনি দিল্লি গিয়ে অমিত শাহর (Amit Shah)হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেবেন। তবে এ সবই এখন আন্দাজ মাত্র। তিনি কবে বিজেপিতে যোগ দেবেন তা এখনও জানা যায়নি সঠিকভাবে। তবে এই মুহূর্তের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে সবথেকে বড় খবর শুভেন্দু অধিকারীর পদত্যাগ। ভোটের আগে এমন একটি ঘটনা রীতিমত আঘাত লাগিয়েছে তৃণমূলে। এখন প্রশ্ন দুটো কবে বিজেপিতে যোগ দেবেন শুভেন্দু অধিকারী ? এবং কী হবে তৃণমূলের হাল !

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: