West Bengal

বাংলার কোষাগারের করুন অবস্থা, অন্যদিকে গোটা রাজ্যবাসীকে বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

রবিবার একটি চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণের পাশে থাকার জন্য রাজ্যের সব পুলিশ কর্মী, হোম গার্ড, বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মী, সংশোধনাগার কর্মীদের ধন্যবাদ জানান

পল্লবী কুন্ডু : করোনা মুক্তির পথে হাটতে চলেছে দেশ। গতকালই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রমোদী(Narendra Modi) জানিয়েছেন আগামী ১৬ই জানুয়ারি থেকে দেশে কোভিড টিকাকরণ শুরু হবে। ঠিক তার পরবর্তী ২৪ ঘন্টার মধ্যেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি(Mamata Banerjee) একটি চিঠির মাধ্যমে ঘোষণা করলেন রাজ্যের সমস্ত মানুষকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা করবে রাজ্য সরকার।

রবিবার একটি চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণের পাশে থাকার জন্য রাজ্যের সব পুলিশ কর্মী, হোম গার্ড, বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মী, সংশোধনাগার কর্মীদের ধন্যবাদ জানান। তাঁদের সবার কাছে কোভিড ভ্যাকসিন অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে পৌঁছে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তবে শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের নয়, রাজ্যের সব মানুষকেই বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে বলেই জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে ইতিমধ্যেই একাধিক জেলায় পুলিশ ও স্বাস্থ্যকর্তাদের কাছে মুখ্যমন্ত্রীর সেই চিঠি পৌঁছে গিয়েছে। থানা ও স্বাস্থ্য কার্যালয় থেকে তা বিলিও হচ্ছে। নবান্ন সূত্রে খবর, অনেক দিন আগেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেই কারণেই মুখ্যমন্ত্রীর লেটারহেডে এই চিঠি লেখা হয়েছে। পাশাপাশি জানা যাচ্ছে, গোটা দেশেই অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ধাপে ধাপে টিকাকরণ হবে। আর এই একই পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে বাংলাতেও, এমনটাই জানাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তবে অন্যদিকে, যে বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই জল ঘোলা শুরু হয়েছে তা তো এই বিপুল পরিমান অর্থ সংস্থান। এই বিষয় নিয়ে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের বক্তব্য, রাজ্যের সব মানুষকে টিকা দিতে গেলে যে খরচ, তার সংস্থান রয়েছে তো ? কারণ, পশ্চিমবঙ্গে অন্তত ১০ কোটি মানুষ থাকেন। তাঁদের প্রত্যেককে টিকা দিতে গেলে অন্তত পাঁচ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে। এদিকে, মুখ্যমন্ত্রী বারবার দাবি করেছেন, রাজ্যের কোষাগার মূল্যহীনতায় ভুগছে। তার মধ্যেই কোভিড এবং আম্ফানের মতো নানান বিপর্যয় সামাল দিয়েছে সরকার। বারংবার টাকা না দেওয়ার কারণে কেন্দ্রের দিকেও আঙ্গুল তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঠিক এরূপ মতাবস্থায় এই বিপুল পরিমান অর্থসংস্থান ঠিক হবে কোথা থেকে তা নিয়েই এক গুরুতর প্রশ্ন উঠছে। পাশাপাশি বিরোধী সমর্থক মহলও এমন প্রশ্ন তুলছে যে, অর্থের জন্য যেখানে বারংবার কেন্দ্রের দিকে আঙ্গুল তোলা হতো সেখানে এখন এতো পরিমান মূল্যের সংস্থান কোথা থেকে করবে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ?

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: