Big Story

ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত, তাও প্রাণে বাঁচাতে পুড়িয়ে ফেলা হলো আফগান ছাত্রীদের নথিপত্র

আফগানিস্তানের শিক্ষা ও সংস্কৃতির ওপর জারি করা হয়েছে ফতোয়া

শর্মিষ্ঠা বিশ্বাস: তালিবানরা শরিয়া আইন মেনেই আফগানিস্তানি মহিলাদের সুরক্ষা ও শিক্ষার স্বাধীনতার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দিহান ছিলেন আফগানী মহিলা আবাসিক স্কুল অফ লিডারশিপ আফগানিস্তান (SOLA ) বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা শাবানা বাসিজ রাশিখ। আফগানিস্তান দখলের পর সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই তালিবানরাই যেভাবে রং বদলেছে, তাতে ওই আবাসিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী এবং তাদের পরিবারের সুরক্ষার কথা ভেবে তালিবানদের থেকে তথ্য গোপন করতে শাবানা বাসিজ রাশিখ ছাত্রীদের সমস্ত নথিপত্র পুড়িয়ে দিয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে কাগজপত্র পুড়িয়ে দেয়ার একটি ভিডিও পোস্ট করে তিনি লেখেন, পড়ুয়াদের এবং তাদের পরিবারের সুরক্ষার জন্যই তিনি এমনটা করেছেন, ছাত্রীদের অস্তিত্ব মুছে ফেলতে না। ছাত্রীদের অভিভাবকদের নিশ্চিন্তে এবং পাশে থাকার বার্তাই দিয়েছেন তিনি।

আফগানিস্তানে শিক্ষা ও সংস্কৃতির ওপর জারি করা হয়েছে ফতোয়া। হেরাট বিশ্ববিদ্যালয়ে ছেলেমেয়েদের একসঙ্গে পঠনপাঠনের ওপর নিষেধাজ্ঞা হেনেছে তালিবান। ১২ বছরের উর্ধ্বে নিজের পরিবারের সদস্য ছাড়া অন্য কোনও পুরুষের সঙ্গে কথা বলার অধিকারও নেই মহিলাদের। নিয়ম ভাঙলেই বাড়ি বাড়ি তালিবানের হানা, নাবালিকাদের বিয়ে বা যৌনদাসী হওয়া, রয়েছে কঠোর শাস্তির নিদান। তাই বাস্তব এবং প্রতিশ্রুতির এই বিস্তর ফারাকের মধ্যেই এখনো অনিশ্চিত আফগানিস্তানের মহিলাদের জীবন ও অধিকার।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: