Sports Opinion

“আমার সঙ্গে দিয়েগোর সম্পর্কটা ছিল পিতা-পুত্রের মতো”, তদন্তের পর কান্নায় ভেঙে পড়লেন লিউকো

রবিবার তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে লিউকোর বাড়িতে তল্লাশি চালায় আর্জেন্টিনার পুলিশ

পল্লবী কুন্ডু : কিংবদন্তির মৃত্যুর পরেই এদিন শুরু হলো তদন্ত। জেরা করা হয় পেশায় চিকিত্‍সক লিউকোকে। রবিবার তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে লিউকোর বাড়িতে তল্লাশি চালায় আর্জেন্টিনার পুলিশ। লিউকোর ব্যবহার করা ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন নিজেদের হেফাজতে নিয়ে নেয় পুলিশ। কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনা(Diego Maradona)র ব্যক্তিগত চিকিত্‍সক ছিলেন লিউকো লিওপোল্ডো (Leuko Leopoldo)। দিয়েগো মারাদোনার মৃত্যুর পেছনে চিকিত্‍সায় কোনো গাফিলতি বা মৃত্যু ঘিরে কোনো রহস্য দানা বেঁধেছে কী না, তার খোঁজ করতে নেমেই মারাদোনার ব্যক্তিগত চিকিত্‍সক লিউকো লিওপোল্ডোকে রবিবার জেরা করে আর্জেন্টিনার পুলিশ।

লিউকোর বাড়ি থেকে মারাদোনার চিকিত্‍সার যাবতীয় পুরনো নথি পত্র নিজেদের হেফাজতে নিয়ে নেওয়া হয়। এই তদন্তের পরই কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেন লিউকো লিওপোল্ডো। সাংবাদিকদের সামনে লিউকো জানান,”আমার সঙ্গে দিয়েগোর সম্পর্কটা ছিল পিতা-পুত্রের মতো। আমি জানি, আমি দিয়োগোর জন্য কী করেছি। আমার পক্ষে যতটা করার ছিল, আমি তার সবটাই করেছি। দিয়েগোর পরিণতির জন্য আমি দায়ী নই।” কথা বলতে বলতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন লিউকো।

২০১৬ সাল থেকে মারাদোনার ব্যক্তিগত চিকিত্‍সকের পদে যুক্ত রয়েছেন লিউকো লিউপোল্ডো। মাথায় রক্ত জমাট বেঁধে থাকায় ৩ নভেম্বর মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয় মারাদোনার। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর বুয়েন্স আয়ার্সের একটি ভাড়া বাড়িতে থেকে ক্রমশ সুস্থ হচ্ছিলেন তিনি। ২৫ নভেম্বর সেখানেই মৃত্যু হয় কিংবদন্তির। কিংবদন্তির মৃত্যুর পরেই দিয়েগোর চিকিত্‍সা ব্যবস্থায় গাফিলতি নিয়ে তদন্তের দাবি তুলেছিলেন মারাদোনার মেয়ে জিয়ান্নিনা। মারাদোনার ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও আইনজীবী মাতিয়াস মোরলা প্রশ্ন তুলেছিলেন,”অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছতে ৩০ মিনিটের বেশি সময় লেগে গেল কী করে ! এটা তো চরম গাফিলতি। মারাত্মক অপরাধ।” তারপরেই কিংবদন্তির মৃত্যুকে ঘিরে শুরু হয় তদন্ত।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: