Big Story

মহিলা শৌচাগার-এর স্থান অন্নেষনে চিঠি পেশ পৌরসভাতে

কলকাতা পুরভোটের আগে ইস্তেহারে ‘নাগরিকবান্ধব কলকাতা’ গড়ার অঙ্গীকার করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস

তিয়াসা মিত্র : কলকাতার গণশৌচালয়ে নিয়ে যে অভিযোগ তা দীর্ঘদিনের অভিযোগ। মহানগরীর বেশিরভাগ শৌচালয় গুলি জরাজীর্ণ অবস্থাতে পরে আছে। যদি একটু দেখি দক্ষিণ কলকাতার চারু মার্কেট সংলগ্ন যে শৌচালয় সেটি এই জোড়া জীর্ণ শৌচালয়ের একটি দৃষ্টান্ত। স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ একেবারেই নেই। কোথাও শৌচালয়ের দরজা ভাঙা, কোথাও আবার শৌচালয় পোকামাকড়ে ভর্তি। যেটুকু পরিকাঠামো রয়েছে, তা-ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে পৌঁছেছে শোচনীয় অবস্থায়। অভিযোগ, উপযুক্ত গণশৌচাগারের অভাবে সবচেয়ে বেশি হয়রানি হয় পথে বেরোনো মহিলাদের। পুরভোটের আগে বার বারই আলোচনায় এসেছে নাগরিক পরিষেবার অপ্রতুলতার এই দিকটি। অভিযোগ পৌঁছেছে মেয়রের কাছেও।

কলকাতা পুরভোটের আগে ইস্তেহারে ‘নাগরিকবান্ধব কলকাতা’ গড়ার অঙ্গীকার করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। ‘কলকাতার ১০ দিগন্ত’ নামক ওই ইস্তেহারে প্রতি ওয়ার্ডে মহিলাদের জন্য শৌচালয় তৈরির কথা বলা হয়েছিল। সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে নবগঠিত পুরসভার সমস্ত কাউন্সিলরদের চিঠি পাঠিয়েছে পুরসভার বস্তি বিভাগ। মেয়র পারিষদ (বস্তি) স্বপন সমাদ্দার রবিবার বলেন, ‘‘ফাঁকা জায়গা খুঁজতে ১৪৪টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের চিঠি পাঠানো হয়েছে।

পুরসভা সূত্রের খবর, শহরে প্রায় সাড়ে চারশোটি গণশৌচালয় রয়েছে। তার মধ্যে অনেকাংশ অস্বাস্থকর এবং ভঙ্গুর প্রায় হয়ে পড়েছে। মেয়র পারিষদ (বস্তি) স্বপন সমাদ্দার বলেন, ‘‘গণশৌচালয়গুলির রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ উঠতে থাকায় আমরা সমস্ত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে চিঠি দিয়েছি। এ বার থেকে শৌচালয়গুলির অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ পেলেই দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে সরিয়ে দেওয়া হবে।’’

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: