West Bengal

মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমন করার ফলে তৃনমুল থেকে বহিস্কার করা হল, শুভেন্দু অনুগামী কণিষ্ক পণ্ডাকে

মমতাকে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার থেকে সরাব", মন্তব্যর জেরে তৃণমূল থেকে বহিষ্কার শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতা

চৈতালি বর্মন : “মমতাকে মুখ্যমন্ত্রী(Mamota Banerjee)র চেয়ার থেকে সরাব “; শনিবারের এই মন্তব্যর জে’রেই; রবিবারে তৃণমূল থেকে ব’হিষ্কার শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতা। তৃণমূল থেকে ব’হিষ্কার করা হল; শুভেন্দু অধিকারী(Subhendu Adhikary) ঘনিষ্ঠ নেতা কণিষ্ক পণ্ডাকে। শনিবার, গেরুয়া রং-এর পাঞ্জাবী পরে; দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আ’ক্রমণ করেন; শুভেন্দু অনুগামী হিসেবে পরিচিত তৃণমূল নেতা কনিষ্ক পণ্ডা(Konisko Ponda)! রাতারাতি, তৃণমূল পরিচালিত ব্যবসায়ী সমিতির অফিস; শুভেন্দু অধিকারী ‘সহায়তা কেন্দ্রে’ বদলে দেওয়া হয়। শুভেন্দুর খাসতালুক কাঁথি শহরে, এই সহায়তা কেন্দ্রটি; গেরুয়া রং-এ রাঙিয়ে দেয় ‘দাদার’ অনুগামীরা। আর রবিবারই, তৃণমূল নেতা সুব্রত বক্সি জানিয়ে দিলেন; “দলবিরোধী কাজকর্মের অভিযোগে; সা’সপেন্ড করা হল কণিষ্ক পণ্ডাকে”।

গেরুয়া পাঞ্জাবি পরেই; তিনি রীতিমতো হু’মকির সুরে বললেন; “যতদিন না নবান্ন থেকে; মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে স’রানো হচ্ছে; ততদিন পর্যন্ত এই শুভেন্দু অধিকারী ‘সহায়তা কেন্দ্র’ চালু থাকবে। দিদি রেডি হোন। মেদিনীপুরের গামছা পরা, পান্তাভাত খাওয়া ছেলেটা; আপনার বি’রুদ্ধে ল’ড়বে”। এরপরেই, কনিষ্ক পণ্ডাকে দল থেকে; ব’হিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেয় তৃণমূল।

কণিষ্ক পণ্ডাই পুরুলিয়ায় রাজ্যের মধ্যে প্রথম; দাদার অনুগামী অফিস খুলেছিলেন। এবার সা’সপেন্ড করা হল কণিষ্ক পণ্ডাকে । শনিবারই অধিকারী গড় কাঁথিতে, তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের কার্যালয় বদলে হয়; ‘শুভেন্দু বাবুর সহায়তা কেন্দ্র’। আর তাত্‍পর্যপূর্ণ ভাবে, এই সহায়তা কেন্দ্রের নতুন রং হয় গেরুয়া। তৃণমূলের অফিস রাতারাতি পাল্টে হয়ে যায়; গেরুয়া রঙের ‘শুভেন্দু সহায়তা কেন্দ্রে’। দাদা বিজেপি যাবার আগেই কি, পরিষ্কার বুঝিয়ে দিলেন; দাদার অনুগামীরা? উঠে গেছে প্রশ্ন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: