West Bengal

বচসা জোরালো হওয়াতেই এবার টনক নড়লো নবান্নের, দাবি নিত্যযাত্রী ও হকারদের

সন্ধ্যায় নির্দিষ্ট সংখ্যায় ট্রেন চালানোর প্রস্তাব দিয়ে শনিবার রাতেই রেলকে চিঠি রাজ্যের

পল্লবী কুন্ডু : ইতিমধ্যেই লোকাল ট্রেন পরিষেবা নিয়ে আমজনতার উত্তেজনা চরমে। রাজ্যের একাধিক স্টেশনে জনতার রোষ সামলাতে নাকাল হচ্ছে প্রশাসন।আনলক পর্বে এ রাজ্যে শুধুমাত্র রেলকর্মীদের জন্য বিশেষ ট্রেন চলছে। জরুরি পরিষেবার কাজে যুক্ত সাধারণ যাত্রীদের সেই ট্রেনে ভ্রমণের কোনও অনুমতি নেই। কিন্তু কাজে যাওয়ার জন্য সেই ট্রেনে উঠতে চেয়ে আরপিএফের অমানবিক আচরণের মুখে পড়তে হয়েছে যাত্রীদের, এরফলে বাঁধছে বচসা। যার জেরে কখনও হাওড়া, কখনও হুগলি, কখনও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন স্টেশনে তুমুল অশান্তির ছবি দেখা গিয়েছে সম্প্রতি বেশ কয়েকবার। তবে হাওড়া স্টেশনে তুমুল যাত্রী বিক্ষোভ এর জেরেই; অবশেষে লোকাল ট্রেন নিয়ে টনক নড়ল নবান্নের, বলছেন নিত্যযাত্রী ও হকাররা।

আর এদিনের বিরোধের পরেই সকাল, সন্ধে নির্দিষ্ট সংখ্যায় ট্রেন চালানোর প্রস্তাব দিয়ে শনিবার রাতেই রেলকে (Eastern Railway) চিঠি পাঠানো হয়েছিল। সূত্রের খবর, সেই চিঠির প্রতিউত্তরেই সোমবার নবান্নে (Nabanna) এ নিয়ে আলোচনা করতে আসছেন রেলকর্তারা। কোন পদ্ধতি মেনে ট্রেন চালানো হবে, তা নিয়ে আলোচনা হবে। রাজ্য এবং রেল উভয়েই নিজের নিজের প্রস্তাব দেবেন এবং তার ওপর ভিত্তি করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।সূত্রের খবর, শনিবার সন্ধেবেলাই রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজারের ফোনে কথা হয়েছে। সোমবার রেল কর্তৃপক্ষকে ডেকে পাঠানো হয়েছে। রেলের তরফে জানা গিয়েছে, কয়েকজন অফিসার নবান্নে যাবেন সোমবার বিকেলে। সেখানে থাকার কথা মুখ্যসচব, স্বরাষ্ট্রসচিবের।

রাজ্যের প্রস্তাব, এই মুহূর্তে কলকাতা মেট্রো পরিষেবা যেভাবে চলছে, তাকে মডেল করেই সকাল-সন্ধে কয়েকজোড়া ট্রেন চালানো হোক জনসাধারণের সুবিধার কথা মাথায় রেখে। আসলে নিউ নর্মালে কলকাতা মেট্রোয় অ্যাপের মাধ্যমে বিশেষ ই-পাস সংগ্রহ করে যেভাবে যাত্রীরা রোজ যাতায়াত করছেন। এই পদ্ধতিতে মেট্রো পরিষেবা যেমন নিরাপদ এবং দ্রুত চলছে, দৈনিক ট্রেন চালানোর ক্ষেত্রেও তেমন কোনও ভাবনা ভাবা যেতে পারে বলে প্রস্তাব রাজ্যের। তবে এই বিষয় নিয়েও খানিক ভাবনা-চিন্তা করা প্রয়োজন। কারণ লোকাল ট্রেনের ক্ষেত্রেও যদি ই-টিকিটই একমাত্র পথ রাখা হয় তবে তা সকল শ্রেণীর মানুষ ব্যবহার করতে অক্ষম। তাই এই বিষয়টি নিয়েও ভাবতে হবে কর্তৃপক্ষকে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: