Women

ফের ধর্ষণ ! এবারের ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু হলো হাবড়া

গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় যুবককে।

পল্লবী কুন্ডু : কথায় আছেনা যে সময় যেটা চলতে থাকে তখন তাকে ট্রেন্ড বলা হয়। আর ঠিক এমনভাবেই ধর্ষণ-এর ঘটনা যেন চলতি সময়ে সেই ট্রেন্ডিং এ পরিণত হয়েছে।সংবাদ মাধ্যম খুললেই প্রত্যেকদিনের সবচেয়ে বড়ো খবরের জায়গায় গোটা গোটা অক্ষরে লেখা থাকে ধর্ষণ বলে। একের পর এক ঘটনা তৈরী করছে দৃষ্টান্ত। আর এবার সেই তালিকাতেই উঠে এল হাবড়ার নাম।গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছে এক যুবক।

এই ঘটনা নিয়ে পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃতের নাম ভোলা ওরাও ওরফে সানি। বছর ২২-এর এই যুবক আদতে ঝাড়খণ্ডের রাঁচি জেলার বাসিন্দা। কর্মসূত্রে উত্তর চব্বিশ পরগনায় থাকে এই সানি। হাবড়া থানার অন্তর্গত বদর ইছাপুর এলাকায় একটি ইট ভাটায় কাজ করে সে। পুলিশ জানিয়েছে, এই এলাকাতেই বাড়ি ভাড়া নিয়ে অনেকদিন ধরে থাকেন সন্ধ্যা সরকার ও তাঁর স্বামী। জানা গিয়েছে, স্থানীয় ইট ভাটায় কাজ করেন সন্ধ্যাদেবীর স্বামী। আদতে এই সরকার দম্পতি বনগাঁ মহকুমার গোপালনগর থানার হিংলি এলাকার বাসিন্দা।

তবে স্বামী বাড়িতে না থাকায় তারই সুযোগ নেয় সানি।পুলিশকে ওই মহিলা জানিয়েছেন, স্বামীর ফিরতে দেরি হচ্ছে দেখে বাড়ির কাছেই রাস্তায় দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলেন তিনি। আচমকাই সেখানে হাজির হয় ইট ভাটার দিনমজুর সানি। সন্ধ্যার অভিযোগ, তাঁকে জোর করে রাস্তা থেকে তুলে ইট ভাটার ভিতর একটি ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যায় সানি। তারপর সানি তাঁকে মারধর করে এবং গলা টিপে ধরে বলেও অভিযোগ করেছেন সন্ধ্যা। অভিযোগ, তারপর তাঁকে ধর্ষণ করে সানি। ভয় দেখিয়ে এও বলে যাতে কাউকে এ কথা না জানানো হয়। তাহলে ফল ভাল হবে না। তারপর ভোররাতে ইট ভাটা ছেড়ে চম্পট দেয় সানি। কোনওমতে বাড়ি ফিরে আসেন সন্ধ্যা। স্বামীকে সব কথা জানান তিনি।

তারপরেই গতকাল সকালে পুলিশের কাছে সানির নামে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন সন্ধ্যা।তারপরেই ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ এবং গ্রেপ্তার করে সানিকে। জানা গিয়েছে, হাওড়া জেলার জগত্‍বল্লভপুর থানা এলাকার একটি ইট ভাটায় গা-ঢাকা দিয়েছিল সানি। সেখান থেকেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ তাকে আদালতে পেশ করা হয়েছে এবং প্রমান সংগ্রহের জন্য শারীরিক পরীক্ষাও করা হয় দুজনের।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: