Education Opinion

বছর সতেরোর সুস্মিতার দৃষ্টান্ত তার মনের জোর ! একটু সুস্থ হতেই হাসপাতাল থেকে পরীক্ষা কেন্দ্রে

‘‘অসুস্থ হয়ে পড়ার পরেও মনে হয়েছে, পরীক্ষাটা দিতেই হবে। তাই হাসপাতাল থেকে স্কুলে ফিরে এলাম।’’ - সুস্মিতা

তিয়াসা মিত্র : পরীক্ষা চলাকালীন অসুস্থ হয়ে পরে বছর সতেরোর সুস্মিতা। অসুস্থতা এতটাই বাড়ে যে তাকেই হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয় অ্যাম্বুল্যান্স করে। কিন্তু একটু সুস্থ হতেই হাসপাতাল থেকে সোজা পরীক্ষা কেন্দ্রে হাজির হয় ওই মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী সুস্মিতা মণ্ডল। ফিরে এসে পুরো পরীক্ষা দিয়েছে সে। তার এই শারীরিক সমস্যার কথা মাথায় রেখে স্থানীয় থানা থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, স্কুলের দোরগোড়ায় তার জন্য রাখা থাকবে পুলিশের অ্যাম্বুল্যান্স বার বার অসুস্থ হয়েও বছর সতেরোর সুস্মিতা যে ভাবে মনের জোরে পরীক্ষা দিচ্ছে, তাকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন পুলিশকর্মী থেকে স্কুলের শিক্ষক— সকলেই। বোনের মনের জোর দেখে অবাক সুস্মিতার দিদি বিশাখাও।

নিউ টাউনের হাটগাছা হরিদাস বিদ্যাপীঠের ছাত্রী সুস্মিতার মাধ্যমিক পরীক্ষার কেন্দ্র পড়েছে কলকাতার লেদার কমপ্লেক্স থানা এলাকার বামনঘাটা হাইস্কুলে। ওই থানার ওসি প্রশান্ত ভৌমিক জানান, এ দিন পরীক্ষা শুরুর কিছু পরেই বামনঘাটা হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক তাঁকে ফোন করে জানান, তাঁদের এক পরীক্ষার্থী ইতিহাস পরীক্ষা দিতে দিতে সংজ্ঞাহীন হয়ে গিয়েছে।

কলকাতা পুলিশের অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ে দ্রুত স্কুলে হাজির হন ওসি। তিনি বলেন, ‘‘স্কুলে পৌঁছে দেখি, সুস্মিতা নামের সেই ছাত্রীই আট মার্চের ইংরেজি পরীক্ষাতেও অসুস্থ হয়ে পড়েছিল। দ্রুত তাকে অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই। স্যালাইন শুরু হওয়ার কিছু ক্ষণের মধ্যে ধাতস্থ হতেই সুস্মিতা জানায়, সে পরীক্ষা দেবে। আমাদের অনুরোধ করে ওকে স্কুলে নিয়ে যেতে। ফের অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে ওকে স্কুলে পৌঁছে দিই। বাকি পরীক্ষা স্কুলে বসেই দেয়।’’

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: